আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 48 মিনিট আগে

বাংলাদেশে প্রতি প্রছর অন্তত তিন লাখ শিশুর জন্ম হচ্ছে অপ্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে। এ সব অস্ত্রোপচারে ব্যবহার করা হচ্ছে উচ্চমাত্রার অ্যান্টিবায়োটিক। এ ছাড়া রোগ শনাক্তকরণে প্রয়োজনের অধিক পরীক্ষা-নিরিক্ষা করানো হচ্ছে। কিন্তু এসব পর্যবেক্ষণের জন্য দেশে কোন প্রতিষ্ঠান নেই।

child birth bd

গত ৮ জুন যুক্তরাজ্যভিত্তিক প্রভাবশালী চিকিৎসা ও জনস্বাস্থ্য সাময়িকী ল্যানসেট-এ একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, বিশ্বব্যাপী চিকিৎসাসেবায় ওষুধ, অস্ত্রোপচার এবং রোগের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবহার অতি মাত্রায় বেড়েছে। এতে করে যেমন রোগী শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে, তেমনই রোগী ও তার পরিবার আর্থিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানায়, যেসব সন্তানের প্রসব স্বাভাবিক হয় না তাদের ক্ষেত্রে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয়। একটি দেশে ১০ থেকে সর্বোচ্চ ১৫ শতাংশ ক্ষেত্রে প্রসবে জটিলতা দেখা দিতে পারে।

ল্যানসেট-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ, নেপাল ও ভারতে সন্তান প্রসবে অপ্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচার বাড়ছে। সরকারি পরিসংখ্যান মতে, বাংলাদেশে বছরে ৩ লাখের বেশি শিশুর জন্ম হচ্ছে অপ্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচারে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, সরকার থেকে চিকিৎসা খাতে নিয়ন্ত্রণের কোন পরিকল্পনা না থাকায় এই মাত্রা বেড়েই চলেছে।

সেভ দ্য চিলড্রেনের ডেপুটি কান্ট্রি ডিরেক্টর ইশতিয়াক মান্নান বলেন, 'স্ট্যান্ডার্ড প্র্যাকটিস হয় না বলে এই অপ্রয়োজনীয় অস্ত্রোপচার হচ্ছে। স্বাভাবিক প্রসবের ক্ষেত্রে কিছু বিলম্ব হয়। এই বিলম্ব মেনে নিতে রাজি থাকেন না অনেক চিকিৎসক। অন্যদিকে, অস্ত্রোপচারের প্রসবের ক্ষেত্রে ফি অনেক বেশি। সাধারণত চিকিৎসক যে প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন, সেই প্রতিষ্ঠান থেকে অস্ত্রোপচারে প্রসব করানোর জন্য চাপ প্রয়োগ করা হয়ে থাকে। এ ছাড়া শিক্ষিত ও উচ্চবিত্ত শ্রেণির নারীদের একাংশ অস্ত্রোপচারই বেছে নিচ্ছেন।

এদিকে অ্যান্টিবায়োটিকের অপ্রয়োজনীয় প্রয়োগও বেড়েছে বহুগুণে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক মো. সায়েদুর রহমান বলেন, 'শিশুদের জন্য অপ্রয়োজনীয় অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার অত্যন্ত ক্ষতিকর। অধিকাংশ ক্ষেত্রে যথাযথ পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। শিশু বয়সে অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের ফলে পরিণত বয়সে দীর্ঘমেয়াদি রোগে ভুগতে হয়। এছাড়া পরিণত বয়সে অ্যালার্জি ও রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতার ওপর প্রভাব ফেলে অ্যান্টিবায়োটিক।'

Add comment

Security code
Refresh


advertisement