আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 49 মিনিট আগে

তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বি মাওলানা সাদ কান্ধলভী ভারতের দিল্লিতে চলে গেছেন। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তিনি বাংলাদেশ থেকে তার দেশে চলে গেছেন।

tablighi jamaat protests at airport

কাকরাইল মসজিদ থেকে আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসেন মাওলানা সাদ কান্ধলভী। তিনি জেট এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে করে দিল্লির উদ্দেশে রওনা হন। এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার মারুফ হোসেন সরদার।

প্রসঙ্গত, ভারতের দিল্লি মারকাযের মুরব্বি মাওলানা সাদ কান্ধলভি বিশ্ব ইজতেমায় আমন্ত্রিত মেহমান হিসেবে বাংলাদেশে আসেন। কিন্তু তাকে নিয়ে হেফাজত, কওমি ও তাবলীগের একাংশ আপত্তি জানায়। তারা মাওলানা সাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। এক পর্যায়ে বৃহস্পতিবার বিকালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে তাবলিগের দুই পক্ষকে নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ছাড়াও মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং তাবলিগের শুরার সদস্য ও আলেমরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের বলেন, টঙ্গীতে বিশ্ব ইজতেমা শান্তিপূর্ণভাবে যথাসময়ে হবে। যাঁদের সঙ্গে বিতর্ক ছিল, তাদের নিয়ে একটা সমঝোতায় তারা এসেছেন। মাওলানা সাদ সুবিধামতো চলে যাবেন। তিনি ইজতেমায় অংশ নেবেন না। যতক্ষণ তিনি বাংলাদেশে থাকবেন ততক্ষণ তিনি কাকরাইলে থাকবেন।

maolana saad conflict

এর আগে বৃহস্পতিবার রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মসজিদ চত্বরে হেফাজতের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফজলুল করিম কাশেমী বলেছিলেন, 'বৃহস্পতিবার সূর্য ডোবার আগেই মাওলানা সা'দকে দিল্লিতে ফেরত পাঠাতে হবে। এর ব্যতিক্রম ধর্মপ্রিয় মুসলমানরা মেনে নেবে না। অশান্ত হয়ে উঠবে দেশ।'

প্রসঙ্গত, মাওলানা সা’দের দেয়া কিছু বক্তব্যকে কেন্দ্র করে বুধবার সকাল থেকেই তাবলিগ-জামাতের একটি অংশ রাজধানীতে মাওলানা সা'দ বিরোধী বিক্ষোভ করেন। ভারতে ফিরিয়ে নেয়ার দাবিতে হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর সড়কে সাতঘণ্টার বেশি সময় অবস্থান নেন।

Add comment

Security code
Refresh