আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 27 মিনিট আগে

আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের বরখাস্ত শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনাকে কারাগারে পাঠানোর হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার পৌনে ৪টায় ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

vikarunnessa teacher hasna prison

এরঅাগে ভিকারুননিসা নূন স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রী অধিকারীকে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে তার বাবা দিলীপ অধিকারী গত মঙ্গলবার হাসনা হেনাসহ তিন জনের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় মামলা দায়ের করেন। অন্য দুইজন আসামি হলেন স্কুলের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আক্তার।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক কারুল হাসান তালুকদার আজ মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে শিক্ষিকা হাসনা হেনাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। বিচারক শুনানি শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

হাসনা হেনাকে গ্রেফতারের বিষয়ে ডিবির (পূর্ব) উপকমিশনার খন্দকার নুরুন্নবী বলেন, আইনি ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা পাওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত শিক্ষকদের গ্রেপ্তারে তৎপরতা শুরু করেন গোয়েন্দারা। শিক্ষিকা হাসনা হেনার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে রাত ১১টার দিকে উত্তরায় অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে আনা হয় মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে।

অরিত্রীর আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে তারা বাবা দিলীপ অধিকারী জানিয়েছেন, গত রোববার বার্ষিক পরীক্ষা চলাকালে সমাজবিজ্ঞান পরীক্ষায় তার মেয়ের কাছে মোবাইল ফোন পান শিক্ষক। এজন্য পরদিন স্কুল কর্তৃপক্ষ তাদের ডেকে পাঠান এবং কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দেয়, মেয়েকে বহিষ্কারের (টিসি) সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। মেয়ের সামনেই তাদের অপমান করা হয়। পরে মানসিক আঘাত সইতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি।

Add comment

Security code
Refresh