আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 27 মিনিট আগে

গুরুর আদর্শ ও বিশ্বাসে ভক্তরা কতো কিছুই না করেন। কিন্তু গুরুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে অর্থ ছাড়াই জীবন চলছে আয়ারল্যান্ডের এক যুবকের। দীর্ঘ দশ বছর ধরে কোন অর্থ উপার্জন করেননি তিনি; এমন কি করেননি খরচও। তবে কীভাবে চলছে গান্ধীভক্তের জীবন?

moneyless living man

আলোচিত যুবকের নাম মার্ক বয়েল। পড়াশোনা করেছেন বিজনেস ইকোনমিকস নিয়ে। এক সময় ফুড কোম্পানিতে চাকরীও করেছেন। একদিন এক বন্ধুর সাথে আড্ডা দিতে গিয়ে গান্ধীজীর এক বাণীতে অনুপ্রাণিত হলেন তিনি। ‘বি দি চেঞ্জ ইউ ওয়ান্ট টু সি ইন দি ওয়ার্ল্ড'---এই লাইন এমন ভাবেই মাথায় ঢুকলো যে পৃথিবীর সব সমস্যার মূল অর্থ ভেবে জীবন বেছে নিলেন ভিন্ন পথে।

মানুষের মধ্যে ভেদাভেদের মূল কারণ অর্থ আর তা ই বাদ দিয়ে দিলেন জীবন থেকে। ২০০৮ সাল থেকেই অর্থ ছাড়া জীবনযাপন শুরু করেন তিনি। প্রাকৃতিক ফল আর ফেলে দেয়া খাবার থেকে খাবার বানিয়ে নিজেই চলতে লাগলেন অর্থ ছাড়া। খুব অল্প জ্বালানিতে নিজের খাবার বানিয়ে আর ভাঙ্গা সাইকেল ক্যারাভানে বাস করেন তিনি। আলাদা আলোর প্রয়োজন হয় না, ল্যাম্পপোস্টই ভরসা।

এছাড়াও বাড়তি মোম দিয়ে যাওয়া আসার কাজটা চলে যায় ভালো মতই। পুরনো বোতলে কাঠ দিয়ে থাকার জায়গা গরম আর দাঁত মাজার জন্য কাটল ফিশের হাড় দিয়ে দিব্যি চলে যাচ্ছে তার জীবন। পরিষ্কার থাকতে ব্যবহার করেন ফেলা দেয়া খবরের কাগজ আর গোসল করেন নদীতে। 

অসাধারণ কাজের মধ্যে তিনি বিদেশি পত্রিকায় লিখে মানুষকে জানান; কিভাবে অর্থ ছাড়া বাঁচতে হয়। তবে পুঁজিবাদের বিপক্ষে নন বলেই দাবী মার্ক বয়লের। তার আদর্শ প্রকৃতির সাথে ও কাছে মিশে থাকা। তবে অবাস্তব শোনালেও খুব সফলতার সাথেই এমনই জীবন পার করছেন তিনি। 

Add comment

Security code
Refresh