আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 30 মিনিট আগে

মাংস পছন্দ করে না এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। সপ্তাহে অন্তত একবার মুরগী, গরু বা খাসির মাংস বেশিরভাগ ফ্যামিলিরই রেওয়াজ। বিশেষ করে শহরে মাংস খাওয়ার প্রচলন সবচেয়ে বেশি। অতিরিক্ত মাংস খেলে হৃদরোগসহ বিভিন্ন রোগের সংক্রমণ ঘটাতে পারে তেমনই আবার সুষম পরিমাণে হলে তা স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষ উপকারী। বিশেষ করে শিশুদের শরীরে প্রোটিন, চর্বি ও শর্করার যোগান দিতে মাংস বিশেষ নিয়ামক।

beef

আসুন জেনে নিই কোন মাংস কেমন উপকারি-

♦ ♦ রেড আর হোয়াইট মিট নামে দুইরকম মাংস পাওয়া গেলেও কম বেশি দুটাই উপকারি। তবে প্রক্রিয়াজাত রেড মিট বাদ দেয়াই ভাল।

♦ ♦ গরুর মাংস হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় এই কথাটি মূলত প্রক্রিয়া জাত মাংসের জন্য সত্য। তবে তাজা মাংস শরীরের জন্য বেশ উপকারি। এতে ক্যালরি, প্রোটিন, কয়েক রকম এসিড, খনিজ লবণ, জিংক, ফসফরাস, সেলেনিয়াম, কয়েক রকম ভিটামিন, কোলেস্টেরল ও প্রচুর লৌহ রয়েছে।

♦ ♦ ছাগলের মাংসে ক্যালরি, চর্বি ও কোলেস্টেরল কম থাকায় এটি আরো ঝুঁকিবিহীন। এতে আছে প্রচুর পটাশিয়াম ও প্রোটিন। ক্যালরি ও চর্বি রয়েছে তবে তুলনামূলক কম।

♦ ♦ ভেড়ার মাংসে গরুর মাংসের চেয়ে বেশি চর্বি থাকায় কিছুটা বিপজ্জনক। হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ায়। তবে আমিষ, ভিটামিন ও খনিজ লবণের ভাল উৎস ভেড়ার মাংস।

♦ ♦ কিছুটা শক্ত ধরণের উটের মাংসতে চর্বি একদম কম। হার্ট এটাকের ঝুঁকি কমায় ও কোলেস্টেরল কমায় উটের মাংস। এতে প্রচুর ভিটামিনও রয়েছে। ক্যালরি, কোলেস্টেরল, ভিটামিন, খনিজ লবণের পরিমাণ পরিমিত পরিমাণে থাকায় নিশ্চিন্তে খাওয়া যায় মহিষের মাংস।

আর যে মাংসই খান না কেন সচেতন ও রান্নার উপায় সঠিক থাকলে তা শরীরের জন্য উপকারি। মাংস বেশি সেদ্ধ করার চেয়ে কম সিদ্ধ মাংস বেশি স্বাস্থ্যকর। 

Add comment

Security code
Refresh