আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 26 মিনিট আগে

সূর্য ডুবে গেলেই শুরু হয় মশার যন্ত্রণা। সারা সন্ধ্যা আর রাতের সময়টাতে অতিষ্ঠ করে তুলতে এই পরজীবী প্রাণীটাই যথেষ্ট। মশার তাড়ানোর স্প্রে বা কয়েল, দুটোর একটাও সম্পূর্ণ সমাধান দিতে পারছে না। আর গরম পড়লে অনেকেরই মশারির ভেতর দম বন্ধ হয়ে আসে। কিন্তু মশার যন্ত্রণায় আর কতদিন!

mosquito protection

কখনও ভেবেছেন, যে যুগে মশা মারার কয়েল বা স্প্রে ছিল না তখন মানুষ মশা তাড়াতো কিভাবে? আদিকালে মানুষ নিজেদের প্রতিরক্ষার জন্য নানা ধরনের প্রাকৃতিক উপায় অবলম্বন করতো। এসব কৌশল অবলম্বন করে আপনিও মশার যন্ত্রণার স্থায়ী সমাধান পেতে পারেন। তবে জেনে নিন, ঘরকে মশা মুক্ত রাখার প্রাকৃতিক কিছু পদ্ধতি।

লেবু ও লবঙ্গের জাদু:

সম্পূর্ন লেবু অর্ধেক করে কেটে নিয়ে লেবুর ভেতরের অংশে অনেকগুলো লবঙ্গ গেঁথে দিন। লবঙ্গ গাঁথার সময় খেয়াল রাখুন, লবঙ্গের পুরো অংশটা ঢুকাবেন না এবং লবঙ্গের মাথার দিকের অংশটা যেন বাহিরে থাকে। এবার লেবুর টুকরোগুলো আপনি চাইলে প্লেটে করে ঘরের ভেতর বা জানালার গ্রিলে ঝুলিয়ে দিতে পারেন। এতে করে বেশ কয়েকদিন ঘরে কোন মশা ঢুকবে না। 

কর্পূরের ব্যবহার:

কর্পূরের গন্ধ পেলেই মশা তল্পিতল্পা নিয়ে পালায়। ফার্মেসি থেকে কর্পূরের ট্যাবলেট কিনে নিন। একটি ছোট বাটিতে একটি ৫০ গ্রামের কর্পূরের ট্যাবলেট রেখে বাটিটি পানি দিয়ে পূর্ণ করুন এরপর এটাকে ঘরের কোণে রেখে দিলে তাৎক্ষণিক মশা গায়েব হয়ে যাবে। দুই দিন পর পর পানি পরিবর্তন করুন। তবে আগের পানিটা ফেলে দেয়ার মতো ভুল করবেন না। এই পানি দিয়ে ঘর মুছলে ঘরে একটি পিঁপড়েও ঢুকবে না। 

রসুনের স্প্রে:

রসুনের গুণ বলে শেষ করা যাবে না। তবে মশা তাড়াতে যে রসুন কতোটা কার্যকর, সেটা জানা থাকলে মশাকে ভয় পেতে ভুলে যাবেন নি:সন্দেহে। রসুনের স্প্রে মশা তাড়াতে খুবই কার্যকারী। ৫ ভাগ পানিতে ১ ভাগ রসুনের রস মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি একটি বোতলে ভরে শরীরের যেসব স্থানে মশারা কামড়াতে পারে সেসব স্থানে স্প্রে করুন। এতে ত্বকের কোন ক্ষতি হবে না এবং মশারা আপনাকে ভয় পেতে শুরু করবে। 

নিমের তেলের ব্যবহার:

ত্বকের জন্য বিশেষ উপকারী নিমের তেল। একই সঙ্গে মশা তাড়ানোর মতো জটিল কার্যক্ষমতাও রয়েছে নিমের। তাই একই সাথে দুই উপকার পেতে ব্যবহার করতে পারেন নিমের তেল। সমপরিমাণ নিমের তেল ও নারকেল তেল মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিন। ব্যাস, নিমের গুণে আপনার সুন্দর ত্বকে মশা বসার মতো ভুল কখনোই করবে না। 

পুদিনার ব্যবহার:

জার্নাল অফ বায়োরিসোর্স টেকনোলোজির গবেষণা মতে, তুলসি ও পুদিনা পাতায় রয়েছে মশা দূরে রাখার ক্ষমতা। এছাড়াও পুদিনার গন্ধের ভয়ে মশা ছাড়া আরো অনেক ধরণের পোকামাকড় আপনার ঘর থেকে দূরে থাকবে। পানিতে পুদিনা পাতা ছেঁচে ভালো করে ফুটিয়ে নিন। এরপর পানির এই ধোঁয়া পুরো ঘরে ছড়িয়ে দিন। দেখবেন একটি মশাও থাকবে না। আপনি চাইলে পুদিনা পাতার তেলও গায়ে মাখতে পারেন। এতে ত্বকেরও অনেক উপকার হবে।

Add comment

Security code
Refresh