আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 41 মিনিট আগে

দেশ বিরোধী এবং ধর্ম বিরোধী পোস্ট দেয়া যাবে না ফেসবুকে। কেউ এসব পোস্ট দিয়ে থাকলে তাতে লাইক দেয়াটাও অন্যায় হিসেবে বিবেচিত হবে। এ ধরনের পোস্ট দেয়ার জন্য পোস্টদাতাকে ৫৭ নং ধারা ভঙ্গের কারণে আইনের আওতায় এনে শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়।

facebook post 57

২০০৬ সালের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের অধিনে করা সৃষ্টি করা হয় এই ৫৭ নং ধারা মুতাবেক অনলাইনে এমন কোন কিছু প্রকাশ করা যাবে না , যা মানুষকে অসৎ হতে উৎসাহ প্রদান করে এবং আইন সৃঙ্খলার অবনতি ঘটে বা ঘটার সম্ভবনা দেখা দেয়। পাশাপাশি রাষ্ট্রের ভাবমূর্তী ক্ষুন্ন হয় এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে এ ধরনের কোন পোস্টও দেয়া যাবে না। ধারাটি কেউ ভঙ্গ করলে তাকে বিচারের আওতায় আনা কথাও উল্লেখ আছে তাতে। এ জন্য হতে পারে চৌদ্দ বছরের জেল এবং অনধিক এক কোটি টাকা জরিমানা।

যদিও ধারাটি শুরু কালীন থেকেই বিতর্কিত হয়ে আসছে অনলাইন ব্যাবহারকারীদের কাছে। এটি অপসারনের জন্য দীর্ঘদিন ধরে তথ্যমন্ত্রণালয় বরাবর দাবী জানিয়ে আসলেও ধারাটিতে কোন পরিবর্তন আনা হয়নি।

গতবছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে সমালোচনা করায় ৫৭ধারা ভঙ্গের অপরাধে গ্রেফতার হয়েছে অনেকেই। আবার শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে অবমানকর মন্তব্য করায় গতমাসে গ্রেফতার হন এক মেয়র।

মেয়র গ্রেফতারের পর পরই ইসলাম ধর্মের বিরুদ্ধে অপ্রিতিকর মন্তব্য করায় ৫৭ ধারা ভঙ্গের অপরাধে গ্রেফতার করা হয় মাগুরার পনেরো বছর বয়সী এক স্কুল ছাত্রকে। সাংবাদিক প্রবীর শিকদারকেও এই ধারা ভঙ্গের কারনে মামলার আসামী করা হয়। ফলে ২০০৬ সালে তৈরি হওয়া এই ধারাটি ফের আলোচনায় উঠে আসে।

বর্তমানে ধারাটি বাতিলের বিষয়ে অনেক বিশেষজ্ঞনই মতামত দিয়েছেন। জনস্বার্থে ধারাটি বাতিলের জন্য আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া সাংবিধান চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে একটি মামলাও দায়ের করেছেন।

 

আপনি আরো পড়তে পারন

ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই চ্যাটিং!

টুইটারের মালিক এখন সৌদি প্রিন্স!

'ট্যাবলেট কার' নিয়ে আসছে নিশান

Add comment

Security code
Refresh