আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 49 মিনিট আগে

নানা জটিলতার পর গতকাল রাতে বাংলাদেশে এসে পৌঁছেছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল। শনিবার তারা নেমে গেছে অনুশীলনেও। অনুশীলনের আগে বাংলাদেশে আসার পর প্রথমবারের মতো সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হিথ স্ট্রিক। দুই বছর আগেও যিনি ছিলেন বাংলাদেশের বোলিং কোচ। এবার এসেছেন প্রতিপক্ষের প্রধান কোচ হয়ে। ঢাকায় পা রেখে স্ট্রিক বললেন, আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজে তার দল ‘আন্ডারডগ’।

raza celebrating in sri lanka

কখনো কখনো নিজেদের আন্ডারডগ বলে দাবি করা খেলারই কৌশল হয়। কিন্তু জিম্বাবুয়ে কোচের এমন স্বীকারোক্তি আসলে তা নয়। এই সিরিজে সত্যিই আন্ডারডগ তারা। গত বছর শ্রীলঙ্কার মাটিতে শ্রীলঙ্কাকে ওয়ানডে সিরিজ হারানোর স্মৃতি আছে তাদের। কিন্তু সেই ঘটনাকে মোটেই জিম্বাবুয়ের কৃতিত্ব মনে করা হয় না। বরং ভাবা হয়, শ্রীলঙ্কা বেশি খারাপ খেলেছে বলেই জিতেছে জিম্বাবুয়ে!

তবে হিথ স্ট্রিক মনে করেন, লঙ্কানদেরকে তাদের ঘরের মাটিতে হারানোর স্মৃতি জিম্বাবুয়েকে এই সিরিজেও ভালো কিছু করার বিশ্বাস দিবে। স্ট্রিক বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেই সিরিজের পর আর আমরা কোনো ওয়ানডে খেলিনি। শ্রীলঙ্কা অবশ্য খেলেছে। আমরা শুধু টেস্ট খেলেছি। তারপরও আমার মনে হয় ওই জয় আমাদের লড়াই করার বিশ্বাস জোগাবে।’

সিরিজ নিয়ে নিজের প্রত্যাশার কথা বলতে গিয়ে স্ট্রিক বলেন, ‘এই সিরিজে আসলে আমরা আন্ডারডগ। আমাদের আরো অনেক দূর যেতে হবে। আমার বিশ্বাস আমাদের এমন কজন ক্রিকেটার আছে, যারা জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকে সামনে এগিয়ে নিতে পারবে।’

গত কয়েক বছরে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট এতোটাই নিচে নেমে গেছে যে, আগামী বিশ্বকাপ খেলাটাও তাদের জন্য অনিশ্চিত। কদিন বাদে ঘরের মাঠে বিশ্বকাপে উঠার জন্য কোয়ালিফাইং রাউন্ড খেলতে হবে তাদের। সেখানে সুবিধা না করতে পারলে ২০১৯ সালের ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে দেখা যাবে না জিম্বাবুয়েকে।

হিথ স্ট্রিক অবশ্য এখনই বেশি দূরে তাকাতে চাইছেন না। তিনি বরং এই সিরিজ নিয়ে ভাবছেন। যেখানে এমন কজন ক্রিকেটার তার দলে আছেন, যারা গত মাসেই খেলে গেছেন বাংলাদেশে। এর মধ্যে আছেন অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার, সিকান্দার রাজা, ম্যালকম ওয়ালার ও সলোমান মিরে।

তাদের বাংলাদেশে খেলার অভিজ্ঞতা যে কাজে লাগবে, সেটা বলতেও ভুল করেননি স্ট্রিক। তিনি বলেন, ‘ওদের অন্তর্ভুক্তি অবশ্যই আমাদের সুবিধা দিবে। কারণ ওরা বাংলাদেশের কন্ডিশনটা খুব ভালোভাবে চিনে।’

Add comment

Security code
Refresh