আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 58 মিনিট আগে

সেঞ্চুরিয়নে একটাই টেস্ট খেলেছে ভারত। সেটাতে জুটেছিলো ইনিংস ব্যবধানে হার। সাত বছর সেই মাঠে আবার খেলতে নেমে প্রথম দিনটা খারাপ যায়নি বিরাট কোহলিদের। শেষ বিকেলে পাঁচ রানের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার তিন উইকেট ফেলে দিয়ে বিরাট কোহলিদের দিনটা বরং সফলই গেছে।

india passed a good day at centurion

টস জিতে অবধারিতভাবেই আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। তাদের সিদ্ধান্তের ইতিবাচক ফল মিলে প্রথম সেশনেই। প্রথমবারের মতো ভারতের বিপক্ষে দেশের মাটিতে কোনো উইকেট না হারিয়ে প্রথম সেশন পার করে তারা। যা দিন শেষে আরো শক্ত অবস্থান গড়ার পথ দেখাচ্ছিলো তাদের। কিন্তু শেষমেষ তা হয়নি।

ধারণা করা হচ্ছিলো, সেঞ্চুরিয়নে রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে বাদ দিয়ে মাঠে নামবে ভারত। কারণ বাউন্সি উইকেটে স্পিনারদের সহায়তা পাওয়ার পথ মোটেই প্রশস্ত নয়। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে টেস্টের প্রথম দিনে ভারতের সেরা বোলার অশ্বিনই! তিনি ৩১ ওভারে ৯০ রান দিয়ে নেন তিন উইকেট।

প্রথম দিনে অশ্বিনের স্পিনে সফলতা পাওয়া ছাড়া প্রথম দিনে ভারতের কীর্তি শেষ বিকেলে পাঁচ রানে প্রোটিয়াদের তিন উইকেট ফেলে দেয়া। বাকি গল্পটা হতে পারতো অ্যাইডেন মার্করাম বা হাশিম আমলার। দুজনের সামনেই সুযোগ এসেছিলো সেঞ্চুরির। কিন্তু মার্করাম ক্যারিয়ারের প্রথম ইনিংসের মতো এবারও শিকার হন নার্ভাস নাইটিজের। এবার তিনি ছয় রানের জন্য সেঞ্চুরি-বঞ্চিত হন। তার তুলনায় ‘দুঃখ’ কম থাকার কথা হাশিম আমলার। কারণ সেঞ্চুরি থেকে ১৬ রান দূরে থাকতে আউট হন তিনি।

প্রথম দিন শেষে প্রোটিয়াদের স্কোরবোর্ডে জমা হয় ২৬৯ রান। তিন উইকেটে তারা করে ১৯৯ রান। বাকি তিন উইকেট পড়ে ৬৯ রানে। প্রোটিয়াদের চতুর্থ উইকেটের পতন হয় ১৪৬ রানে থাকা অবস্থায়। রান সেখান থেকে ২৫১-তে যেতে না যেতে আরো দুই উইকেট পড়ে তাদের। শেষ বিকেলের এই দুর্ঘটনায় না পড়লে দিনটা হতে পারতো কেবলই তাদের।

প্রোটিয়াদের শেষ তিন উইকেটের দুটিই পড়ে রান আউটের ফাঁদে পা দিয়ে। প্রথমে যান হাশিম আমলা। তাকে রানআউট করেন হার্দিক পান্ডিয়া। এরপর ডি ককের উইকেটটি নেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। শেষ উইকেটটা পড়ে পার্থিব প্যাটেল ও পান্ডিয়ার যৌথ চেষ্টায়। আউট হন ভ্যারনন ফিল্যান্ডার। এই তিনটা আউটের কারণেই দিন শেষে ব্যাকফুটে চলে যায় প্রোটিয়ারা। পক্ষান্তরে ওই তিন উইকেট ভারতকে দেয় দারুণ সূচনা।

Add comment

Security code
Refresh