আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 23 মিনিট আগে

সপ্তাহ খানেক আগে দোপোর্তিভো লা করুণার মাঠে হেরে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থান হারাতে হয়েছে। তবে সেটা যে স্রেফ দুর্ঘটনা ছিল পরের ম্যাচেই বুঝিয়ে দিল বার্সেলোনা। ঘরের মাঠে ভ্যালেন্সিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে কাতালান ক্লাবটি। বার্সার দাপুটে জয়ে সবচেয়ে বড় অবদান লিওনেল মেসির। জোড়া গোল করেছেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক।

messi against alencia

‘এমএসএন’ ত্রয়ীর অপর দুই সদস্য লুইস সুয়ারেজ ও নেইমারও উজ্জল ছিলেন গত রাতের ম্যাচে। বার্সার প্রথম গোলটি সুয়ারেজের পাঁ থেকেই এসেছে। আর নেইমার গোল না পেলেও দুটি গোল বানিয়ে দিয়েছেন।

এই জয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে পয়েন্টের ব্যবধানটা কমিয়ে দুইয়ে নামিয়ে আনল বার্সেলোনা। ৬৫ পয়েন্ট স্প্যানিশ লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে রিয়াল। দুই নম্বরে থাকা বার্সেলোনার পয়েন্ট ৬৩। তবে বার্সা অবশ্য একটা ম্যাচ বেশি খেলেছে।

রাতে দারুণ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়লেও ঘরের মাঠে শুরুতে কিন্তু বার্সেলোনাই পিছিয়ে পড়েছিল। ম্যাচের ২৯ মিনিটে ভ্যালেন্সিয়াকে ১-০ এগিয়ে নেন মাঙ্গালা। তবে ভ্যালেন্সিয়ার উল্লাস বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। ৩৫ মিনিটে নেইমারের দারুণ এক পাসে বার্সেলোনাবার্সেলোনাকে ১-১ তে সমতায় ফেরান লুইস সুয়ারেজ।

এরপরই শুরু মেসি ঝলক। মাত্র সাত মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে ভ্যালেন্সিয়াকে ম্যাচ থেকে ছিটকে দেন বার্সার এই প্রাণভোমড়া। ৪৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করার পর ৫২ মিনিটে আবারও ভ্যালেন্সিয়ার জালে বল জড়ান মেসি।

এর মধ্যেই মুনির এল হাদ্দাদিও গোল করে বসেন। না, এতে বার্সেলোনার ব্যবধান বাড়েনি। বার্সার একাডেমি থেকে উঠে আসা তরুণ বার্সার জার্সিতে খেলেছেন অনেকদিন। কিন্তু নিয়মিত দলে সুযোগ না পাওয়াতে ধারে খেলছেন ভ্যালেন্সিয়ার হয়ে। আর ভ্যালেন্সিয়ার হয়ে বার্সেলোনার মুখোমুখি হলে গোল করাটা যেন নিয়ম বানিয়ে ফেলেছেন এই তরুণ।

কাল প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গোল করেছেন। তবে এটা বার্সার জয়ে এতোটুকুও বাঁধা হতে পারেনি। কারণ ৮৯ মিনিটে গিয়ে নেইমারের দারুণ এক প্রচেষ্টায় বার্সালোনাকে চতুর্থ গোলটা এনে দেন আন্দ্রে গোমেজ। যাতে শেষ পর্যন্ত ৪-২ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সেলোনা।

advertisement

Add comment

Security code
Refresh