আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 24 মিনিট আগে

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন বলেছেন, 'ভারতে ৫০০ ও ১০০০ রুপির নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নয়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেয়া। এই নোট বাতিল করে তিনি অবৈধ অর্থ খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়েছেন।'

amartya sen

গতকাল মঙ্গলবার টেলিভিশন চ্যানেলের এক সাক্ষাৎকারে তিনি প্রধানমন্ত্রীর এমন একটি সিদ্ধান্তে রিজার্ভ ব্যাংকের সায় দেয়া নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, 'মনমোহন সিং বা অন্য কেউ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নরের দায়িত্বে থাকলে এই সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে ভালো মন্দ বিচার করতেন।'

অমর্ত্য সেন বলেন, 'সাধারণ মানুষের রুটিরুজিতে থাবা দেয়া হয়েছে। তাছাড়া নোট বাতিলের ওই একতরফা সিদ্ধান্তে যুক্তরাষ্ট্রীয় সরকার কাঠামোর পায়েও কুড়াল মারা হয়েছে। ঐক্য না থাকায় বিরোধীরা একজোট হয়ে জোরালোভাবে এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করতে পারেনি। তাই পুরোপুরি ভুল পদ্ধতিতে নেয়া এই সিদ্ধান্ত যে গলদে ঠাসা তা এখনো অনুমান করতে পারেননি দেশের সাধারণ মানুষ। আর এই অনৈক্যের সুবিধা কাজে লাগিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।'

নোট বাতিলের সিদ্ধান্তে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি থমকে যাওয়ার আশঙ্কা করেছিলেন অমর্ত্য সেন। আর এবার প্রধানমন্ত্রীকেই দায়ী করে তিনি বলেছেন, 'ভারতের অর্থনীতিতে কালো টাকা কখনোই বড় কোন সমস্যা ছিল না। এই সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে সরকারের উচিৎ ছিল রাজ্য সরকারের সঙ্গে পরামর্শ করা। মাত্র ৬ শতাংশ কালো টাকার জন্য ৮৬ শতাংশ নোট বাতিল করা সম্পূর্ণ যুক্তিহীন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, 'শুধুমাত্র জিডিপি দিয়ে এই ক্ষতি পরিমাপ করা যাবে না। নোট বাতিলের এই সিদ্দান্তে মানুষের প্রাণহানি হয়েছে, চাষাবাদ নষ্ট হচ্ছে। এসব অর্থনীতিকে আরো পিছিয়ে নেবে।

গত ৮ নভেম্বর ভারত সরকার হঠাৎ ৫০০ ও ১০০০ রুপির নোট বাতিলের ঘোষণা দেয়। মোদি সরকার এই মানের নোট বদলে ব্যাংক থেকে ছোট মানের নোট সংগ্রহের নির্দেশ দেয়।

Add comment

Security code
Refresh