আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 15 মিনিট আগে

ইসরায়েল একই সঙ্গে দুই প্রতিকূল পরিস্থিতির মুখোমুখি রয়েছে বলে দাবি করেছে লেবাননের প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহ। রোববার হিজবুল্লাহর এক অনুষ্ঠানে সংগঠনটির উপ-মহাসচিব শেখ নাঈম কাসেম একথা বলেন।  তিনি বলেন, হিজবুল্লাহর উদীয়মান শক্তিকে মোকাবেলার সক্ষমতা না থাকায় ইসরায়েলের চেয়ে দেখা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।

hezbollah israel lebanon

হিজবুল্লাহর উপ-মহাসচিব শেখ নাঈম কাসেম বলেন, ইসরায়েল বর্তমানে দুটি প্রতিকূল পরিস্থিতর মুখোমুখি রয়েছে। এর একটি হচ্ছে- লেবাননের বিরুদ্ধে যুদ্ধে গেলে মারাত্মক পরিণতি বরণ করতে হবে তেল আবিবকে, তা সহ্য করতে পারছে না; অপরটি হচ্ছে- হিজবুল্লাহর ক্রমবর্ধমান শক্তির কারণে তারা আতংকিত। 

গত শনিবার প্রতিবেশি সিরিয়ায় ইসরায়েলি বিমান হামলা চালাতে গেলে ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ভূপাতিত করে সিরিয়ার সেনারা। সেই ঘটনার প্রতি ইঙ্গিত করে শেখ নাঈম কাসেম বলেন, এই ঘটনা প্রমাণ করে যে, আঘাত আসলে বিনা জবাবে ইসরায়েলকে আর ছাড় দেয়া হবে না।

ইসরায়েলের সঙ্গে লেবাননের তিনটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে। এছাড়া লেবাননের ভেতরে বহু গুপ্তহত্যার সঙ্গে ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদ জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

ইসরায়েলি হুমকি মোকাবিলা এবং লেবাননকে রক্ষার শপথ নিয়ে ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় হিজবুল্লাহ। ইরানের সহায়তায় এই সংগঠনটি দ্রুত বেশ শক্তশালী হয়ে ওঠে। ইসরায়েলের সঙ্গে ২০০৬ সালে লেবাননের যুদ্ধ হলে হিজবুল্লাহ ব্যাপক জবাব দেয়। ফলে আগ্রাসী ইসরায়েল পিছু হটতে বাধ্য হয়।

হিজবুল্লাহ লেবানন সেনাবাহিনীকে সহায়তা করে আসছে এবং দেশটির দক্ষিণ সীমান্তে সক্রিয় রয়েছে।

সম্প্রতি ইসরায়েলি যুদ্ধমন্ত্রী লিবারম্যান নতুন কোন যুদ্ধ হলে হিজবুল্লাহ ও লেবাননের সেনাবাহিনীকে চরম মূল্য দিতে হবে বলে হুমকি দেন। 

Add comment

Security code
Refresh