advertisement
আপনি দেখছেন

ঈদুল আযহা সামনে রেখে মুক্তির অপেক্ষায় থাকা একটি চলচ্চিত্র নিয়ে চলছে তোলপাড়। “কমান্ডো” নামের চলচ্চিত্রটির টিজার মুক্তি পেয়েছে সম্প্রতি। টিজারে দেখে মনে হয়েছে, ইসলাম ধর্মের নাম নিয়ে যে সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটে, তার বিরুদ্ধে একজন নায়ক লড়াই করেন এবং তাদেরকে দমন করেন।

criticism over commando movie

টিজারটিতে ইসলাম ধর্মের কালেমাখচিত পতাকায় অস্ত্রের ছবিসম্বলিত দৃশ্য দেখা গেছে। এ ছাড়া টিজারটিতে দেশীয় ধর্মভিত্তিক সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর বিভিন্ন শ্লোগানকে টিজারটিতে সন্ত্রাসীদের শ্লোগান হিসেবে প্রচার করা হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে ব্যাপক তোলপাড়। কেউ বলছেন, সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসীদের কর্মকাণ্ড ফুটিয়ে তোলার জন্য যেভাবে ইসলাম ও মুসলমানদের প্রতীক ব্যবহার করা হয়েছে, তা অত্যন্ত জঘন্য। কেউ এই চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্যকে ষড়যন্ত্রমূলক অথবা দুর্বল বলে অভিহিত করেছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হওয়ার পরই এর প্রযোজনা সংস্থা টিজারটি ইন্টারনেট থেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে। চলচ্চিত্রটিতে যৌথভাবে বিনিয়োগ করেছে বাংলাদেশের শাপলা মিডিয়া ও ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা দেবের মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। দেব এই চলচ্চিত্রের মূল চলচ্চিত্রে অভিনয়ও করেছেন।

কমান্ডোর টিজার মুক্তি দেওয়ার কয়েদিনের মধ্যেই বাংলাদেশের একজন আলোচিত ধর্মীয় আলেম মাওলানা আব্দুল হাই মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ এটিকে স্পষ্টত ইসলাম ধর্মের অবমাননামূলক চলচ্চিত্র হিসেবে অভিহিত করেছেন।

তিনি তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন, “সিনেমা দেখি না, খবরও রাখি না। কিন্তু অনলাইন দুনিয়ায় যেহেতু আছি, সিনেমার টিজারের স্ক্রিনশট দেখে কপাল কুঁচকে গেলো। দুনিয়াব্যাপী ইসলাম নিয়ে যে বহু পর্যায়ের ষড়যন্ত্র চলছে এই সিনেমা তারই অংশ বলে মনে হচ্ছে। ইসলাম আর মুসলমানদের নানান কৌশলে এতদিন দাড়ি, টুপি, জুব্বা, রুমাল, সুরমাকে রাজাকার, বদমায়েশ, চরিত্রহীনদের পোশাক বানিয়ে অপমান করেছে ভারত ও এদেশের মুভি মেকাররা। এবার যৌথ উদ্যোগ নিয়েছে!! নতুন সংযুক্তি, চরিত্র নয় সাবজেক্টই হবে সেটি! কৌশলে বিষয়টিই বাংলা সিনেমার সাবজেক্ট হচ্ছে! মুভি বিশ্বমানে নিয়ে যাওয়া বলে কথা!”

তিনি আরো লিখেছেন, “কালেমাধারীদের পরাজিত করার জন্য “নায়ক দেব” যুদ্ধ করে যাবে এই সিনেমাতে । এই মুভিতে দেখাবে ইসলামি জঙ্গিবাদ দমনে নায়ক দেব এসে হাজির হয়েছে। আর জঙ্গিদের সিম্বল হিসাবে কালিমা খচিত পতাকা ব্যবহার করা হয়েছে। এখানে সুস্পষ্টভাবে ইসলামকে ডিমোনাইজ করা হচ্ছে। ভিলেন বানিয়েছে ইসলামকে । যা ইচ্ছাকৃত ইসলাম বিদ্বেষ। ইসলাম কখনো জঙ্গী-ধর্ম নয়, একই সাথে ধর্মের নামে কেবল ইসলামেই উগ্রতা আর জঙ্গীবাদ আছে এমন নয়, সব ধর্মেই আছে, তাহলে মুভিতে কেনো ইসলাম আর কালেমার পতাকারই শুধু ব্যাবহার?”

মাওলানা সাইফুল্লাহ তার লেখার সাথে কয়েকটি স্ক্রিনশটও জুড়ে দিয়েছেন। যেখানে দেখা যাচ্ছে কালেমা লেখা পতাকার নিচে একটি অস্ত্রের ছবি এবং তার পাশ দিয়ে অস্ত্র হাতে দৌড়ে আসছেন কয়েকজন কথিত সন্ত্রাসী।

এ দিকে, শাপলা মিডিয়ার কর্মকর্তা সেলিম খান দাবি করেছেন যে, তাদের প্রযোজিত এই চলচ্চিত্রে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করার মতো কিছু তারা করেননি। তার মতে, টিজারে পুরো ছবির গল্পটা বলা হয়নি। তিনি দর্শকদের পুরো ছবি দেখে তারপর মন্তব্য করার অনুরোধ করেন।

সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেন, “টিজারের একটি দৃশ্য দেখে বলে দেওয়া যায় না পুরো গল্প কী। আমি নিজেই মুসলিম। ইসলামকে অবমাননা করার মতো সাহস আমার নেই।” তিনি দাবি করেন, চলচ্চিত্রটিতে ইসলামের নানা গুণাবলী তুলে ধরা হয়েছে।

কমান্ডো নামের এই চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন শামীম আহমেদ রনি নামের একজন পরিচালক। ২০১৬ সালে শাকিব খানকে নিয়ে তিনি রানা- দ্যা মেন্টাল নামের একটি চলচ্চিত্র পরিচালনা করে আলোচনায় আসেন। এরপর শাকিব খান, শবনম বুবলি ও রজতাভ দত্তকে নিয়ে বসগিরি; আরেফিন শুভ, নুসরাত ফারিয়াকে নিয়ে ধ্যাততেরিকি পরিচালনা করেন। তিনি রংবাজ ও শাহেনশাহ নামের দুটি চলচ্চিত্রও পরিচালনা করেন।