advertisement
আপনি দেখছেন

রাজধানীসহ সারাদেশে মাঝেমধ্যেই ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বিভিন্ন অনিয়ম, জালিয়াতি এবং অবৈধ কাজের তাৎক্ষণিক দণ্ড দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। কিন্তু নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার বিষয়টি অবৈধ ঘোষণা করেছেন মহামান্য আদালত।

high court writ

আজ বৃহস্পতিবার মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি আশিষ রঞ্জন দাসের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বলা হয়, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা বিষয়ক ২০০৯ সালের আইনের ১৪টি ধারা ও উপধারা অবৈধ ও অসাংবিধানিক। সেই সঙ্গে এই আইনে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত কক্ষ পরিচালনাও অবৈধ।

ভ্রাম্যমাণ বা মোবাইল কোর্ট আদালতে সাজাপ্রাপ্ত পৃথক তিন ব্যক্তির দায়ের করা রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট এই রায় দিয়েছেন। আদালত উল্লেখ্য তিন ব্যক্তিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের দেয়া সাজা বাতিল ও একজনের কাছ থেকে আদায় করা ১০ লাখ জরিমানার টাকা রায়ের কপি পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে ফেরত দিতে সরকারকে নির্দেশ দিয়েছেন।

রায় ঘোষণার পর রিট আবেদনকারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার হাসান এম এস আজিম বলেন, 'আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী এখন থেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে পারবেন না। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে সরকারকে সংশ্লিষ্ট আইন সংশোধন করতে হবে। অথবা নতুন আইন তৈরি করতে হবে।'