advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 12 মিনিট আগে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদে পুনরায় নির্বাচনের দাবিতে ভিসি কার্যালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামানকে ধিক্কার জানিয়ে তাদের অবস্থান কর্মসূচি স্থগিত করেছেন। পরবর্তী কর্মসূচি পাঁচ প্যানেলের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে আলাপ করে গণমাধ্যমকে জানিয়ে দেয়া হবে। এমনটাই জনিয়েছেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতা জিএস পদে নির্বাচন করা রাশেদ খান। আজকের কর্মসূচিতে বাম জোট, ছাত্র ফেডারেশন এবং স্বতন্ত্র প্যানেলের প্রার্থী ও সমর্থকরা অংশ নেন।

aroni rashed

রাশেদ খান বলেন, 'আমরা এখানে পাঁচ ঘণ্টা ধরে বসে আছি। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন নৈতিকভাবে এতো বেশি দুর্বল হয়ে গেছে যে, সাধারণ শিক্ষার্থীদের সামনে আসার সৎ সাহসটুকু তাদের নেই।'

কোটা সংস্কার আন্দোলনের এই নেতা ঢাবি প্রশাসনের সমালোচনা করে আরো বলেন, 'এই বিশ্বদ্যিালয়ের মান সম্মান যেটুকু ছিলো তা এই নির্লজ্জ প্রশাসনের কারণে নষ্ট হয়ে গেছে।'

স্বতন্ত্র থেকে ভিপি পদে নির্বাচন করা অরণী সেমন্তি খান বলেন, 'প্রশাসনের আচরণে আমরা খুবই হতাশ! এটা আমাদের জন্য লজ্জার কারণ। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আমাদের অবিভাবক। সে হিসেবে আমদের সঙ্গে তাদের দেখা করার কথা ছিলো কিন্তু তারা করেনি।'

প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে অরণী বলেন, 'আপনাদের এতো ভয় কিসের? এত লুকানোর কি আছে? আমরা আপনাদের ধিক্কার জানাই।’

এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগে পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকালে রাজু ভাষ্কর্যের পাদদেশে অবস্থান নেয় ‍নির্বচন বর্জনকারী পাঁচটি প্যানেলের নেতৃবৃন্দ।

পরে সবাই একত্রিত হয়ে বেলা সাড়ে ১১টায় রাজু ভাস্কর্য থেকে মিছিল নিয়ে বের হয়। মিছিলটি পর্যায়ক্রমে কলাভবন, ডাকসু, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরী, আইবিএ বিল্ডিং, শ্যাডো এবং বিভিন্ন হল প্রদক্ষিণ করে ভিসি চত্বর হয়ে ভিসির কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। পরে বিকেল ৫টায় তাদের অবস্থান কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

sheikh mujib 2020