advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 32 মিনিট আগে

বিশ্বের অন্যতম জনবহুল শহর ঢাকার সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করা, বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানো ও রাস্তায় প্রতিযোগিতাসহ চালকদের বিভিন্ন অনিয়মের কারণে ব্যাপক যানজটের পাশাপাশি প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।

traffic jam in the city

গত মঙ্গলবার রাজধানীর প্রগতি সরণি এলাকায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালের (বিইউপি) শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি রাজধানীর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে। এতে করে ওই এলাকাসহ পুরো রাজধানীতে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। শিক্ষার্থীদের এ বিক্ষোভ আজও (বুধবার) চলছে।

এর আগে গত বছরের জুলাইয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় ঢাকার শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহতের জের ধরে টানা কয়েকদিন নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীর ঢাকাসহ সারাদেশে রাস্তায় নেমে আসে শিক্ষার্থীরা।

এ প্রেক্ষিতে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ও যানজট নিরসনে সরকার অসংখ্য পদক্ষেপ গ্রহণ করলেও সড়ক শৃঙ্খলায় দৃশ্যত কোনো পরিবর্তন আসেনি।

গত বছরের নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের পর সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে ঢাকায় বিশেষ কর্মসূচি নেয় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। কিন্তু তারপরও কোনো উন্নতি হয়নি।

গত সেপ্টেম্বরে বাস চলার সময় গাড়ির দরজা বন্ধ রাখা, গাড়ির চালকসহ সংশ্লিষ্টদের ছবি ও ফোন নম্বর ঝুলিয়ে রাখা, গাড়ি ও চালকের লাইসেন্সসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হালনাগাদ রাখা এবং চালক ও যানবাহনের স্টাফদের জন্য মালিকের পক্ষ থেকে মাসিক বেতনের ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন নির্দেশনা দিয়ে রাজধানীতে ১২১টি স্থানে বাস থামানোর স্থান নির্ধারণ করে দেয় ডিএমপি।

এরপরও পরিবহন খাতে কোনো পরিবর্তন আসেনি। বাসগুলো নিজেদের খেয়াল-খুশি মতো যাত্রী ওঠানামা করছে, চালক ও সহকারীদের দৈনিক ভিত্তিতে মজুরি, অসংখ্য আনফিট (চলাচলের অনুপযোগী) যানবাহন সেই সাথে উল্টোপথে যাত্রা অব্যাহত আছে এখনো।

সড়ক শৃঙ্খলায় বিভিন্ন প্রচারণাও কোনো কাজে আসছে না। চালক থেকে পথচারী কেউ আইন মানছে না। সড়কে যেন আইন ভাঙার সংষ্কৃতিই চালু হয়েছে। অপরদিকে অল্প সংখ্যক ট্রাফিক পুলিশ দিয়েও মানানো যাচ্ছে না ট্রাফিক আইন।

sheikh mujib 2020