advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 10 মিনিট আগে

দীর্ঘ ২৮ বছরের অচলায়তন ভেঙ্গে গত ১১ ই মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ অর্থাৎ ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। তবে নির্বাচনের দিনই নানা অনিয়ম, কারচুপি আর জালিয়াতির অভিযোগ এনে ছাত্রলীগ ছাড়া সবগুলো প্যানেল নির্বাচন বর্জন করে। এরপর থেকেই পুননির্বাচনের দাবিতে সোচ্চার ছিল বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন ও স্বতন্ত্র প্যানেলগুলো।

rashed khan called by du

বিভিন্ন প্যানেলে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্যানেলগুলো নির্বাচনের পর একাধিকবার নির্বাচন বাতিলের দাবিতে ঢাবি ভিসিসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করেও কোন ফল পায়নি। তবে গতকাল ডাকসু নির্বাচনের জালিয়াতি, কারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ প্রদানের শেষ দিনে পুনঃনির্বাচনের সুপারিশ করে আবেদন করেন ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক (জিএস) প্রার্থী কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন। তার আবেদনের প্রেক্ষিতে ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন-২০১৯ সংক্রান্ত তদন্ত কমিটি আগামীকাল রোববার তাকে ডেকেছে।

এ ব্যাপারে ডাকসুর জিএস প্রার্থী কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন বলেন, 'আমি গতকাল দুপুর ২ টায় ২০টি সংযুক্তি আকারে তথ্য প্রমাণসহ অভিযোগ জমা দিয়েছি। এরপর তদন্ত কমিটি থেকে বিকালে কল করে জানায়, আপনার সকল অভিযোগ তথ্য প্রমাণসহ আমরা দেখেছি। আমরা আগামী রোববার, দুপুর ১২টায় প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তার রুমে মিটিংয়ে বসবো। আপনাকে সেখানে আসতে বলা হলো। আমরা আপনার অভিযোগগুলো শুনবো।'

ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন-২০১৯ সংক্রান্ত তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক বরাবর লেখা চিঠিতে রাশেদ অভিযোগ করেন, ডাকসু নির্বাচনে সংগঠিত হওয়া জালিয়াতি, কারচুপি ও অনিয়মের চিত্র উঠে এসেছে দেশের সকল খ্যাতনামা গণমাধ্যমে। যা ভোটের দিন আমি স্বচক্ষে দেখেছি এবং জালিয়াতি, কারচুপি এবং অনিয়মের প্রমাণগুলো এই আবেদনের সংযুক্তি অংশে ২০টি সংযুক্তি সংযুক্ত করেছি। আমি মনে করি, এসব জালিয়াতি, কারচুপি এবং অনিয়মিতের ঘটনা এড়িয়ে যেতে পারেনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

তিনি বলেন, 'আমার দাখিলকৃত প্রমাণসমূহের সাপেক্ষে, আমার পদের সকল ভোট সাংবাদিকদের সামনে পুনর্গণনা করতে হবে। শুধু তাই নয় এই ডাকসু নির্বাচন ২০১৯-এর পুরো নির্বাচন প্রক্রিয়া প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বলে মনে করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষক ও শিক্ষার্থী।'

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা পুনরুদ্ধার ও ছাত্রসমাজের দাবিকে আমলে নিয়ে উক্ত ডাকসু নির্বাচনের ফলকে বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের সুপারিশের দাবি জানান তিনি।

দীর্ঘ ২৮ বছর পর গত ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে ২৫টি পদের মধ্যে ২৩টিতেই জয় পায় ছাত্রলীগ। ফলাফলে ভিপি নির্বাচিত হন কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা নুরুল হক নুর, জিএস নির্বাচিত হন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী এবং এজিএস নির্বাচিত হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন।

sheikh mujib 2020