advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 32 মিনিট আগে

চট্টগ্রামের শিল্পাঞ্চলে জুটমিলগুলোতে মজুরি কমিশন, গ্রাচুইটি, পিএফ’র টাকা প্রদানসহ ৯ দফা দাবিতে শ্রমিকদের ৭২ ঘণ্টার ধর্মঘট চলছে। মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে সীতাকুণ্ড-ফৌজদারহাটসহ শিল্পাঞ্চলে রাজপথ-রেলপথ অবরোধ কর্মসূচি পালন করে পাটকল শ্রমিকরা।

road block to the jute mill workers

এতে করে যানবাহন ও ট্রেনে চলাচলকারী হাজারো মানুষ দুর্ভোগে পড়েন। এছাড়া সোমবার থেকে শুরু হওয়া এইচএসসি পরীক্ষার্থীরাও বিপাকে পড়েন।

পাট শ্রমিকদের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে উপজেলার হাফিজ জুট মিলস, গুল আহম্মদ জুট মিলস, আর আর জুট মিল গালফ্রা হাবিব ও এম. এম জুট মিলসের হাজার হাজার শ্রমিকরা সকাল ৮টা থেকে ৪ ঘণ্টা সড়কপথ ও অবরোধের ঘোষণা করলেও প্রশাসনের আশ্বাসে সীতাকুণ্ডের হাফিজ জুট মিলস এলাকায় এক ঘণ্টা পর শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়। অবরোধ চলাকালে চাঁদপুর থেকে চট্টগ্রামগামী মেঘনা এক্সপ্রেস এবং চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে যাওয়া পাহাড়িকা এক্সপ্রেস আটকা পড়ে।

road block to the jute mill workers 2

এ সময় অবরোধের স্থানে ছুটে আসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন রায়, এএসপি সীতাকুণ্ড সার্কেল শম্পা রানী সাহা, সীতাকুণ্ড মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. দেলোয়ার হোসেন, বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ আহসান হাবীব, ফৌজদার হাট পুলিশ ফাঁড়ির সার্জেন্ট রফিক আহমেদ মজুমদারসহ আইনশৃংখলার বিভিন্ন কর্মকর্তাবৃন্দ। এসময় প্রশাসনের আশ্বাসে শ্রমিকরা অবরোধ স্থগিত করেন।

এদিকে সড়ক ও রেলপথ অবরোধ স্থগিত করলেও ৭২ ঘণ্টার কারখানা ধর্মঘট চলবে বলে জানিয়েছে আন্দোলনরত শ্রমিকরা। সরেজমিনে হাফিজ জুট মিলস এ ঘুরে দেখা যায়, ভোর ৬টা থেকে শ্রমিকরা কাজে যোগ দেয়নি। পুরো মিল জুড়ে সুনসান নিরবতা।

জাতীয় পাট শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও হাফিজ জুট মিলস সিবিএ সেক্রেটারি মাহবুবুর রহমান বলেন, প্রশাসনের আশ্বাসে আমরা অবরোধ স্থগিত করেছি, এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে ৪ ঘণ্টার অবরোধের কথা থাকলেও তা এক ঘণ্টা করা হয়েছে। তবে আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

এদিকে নগরীর বায়োজিদ, পাহাড়তলী শিল্পাঞ্চলগুলোতেও শ্রমিকদের ৭২ ঘন্টা ধর্মঘট চলছে। এসব এলাকায়ও সড়ক অবরোধ পালিত হয়েছে।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম বলেন, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শ্রমিকদের রাস্তা থেকে সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ পাটকল শ্রমিক লীগ ও সিবিএ-নন সিবিএ ঐক্য পরিষদের আহ্বানে এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারী শ্রমিকরা জানান, বিগত চার বছর ধরে বিজেএমসি মজুরি কমিশনসহ শ্রমিকদের দাবি পূরণের কথা বললেও তা বাস্তবায়ন করেনি। এছাড়া বকেয়া মজুরি, পিএফ’র টাকা প্রদান ও বদলি শ্রমিকদের স্থায়ীকরণের বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

এ কারণে দাবি আদায়ে অবরোধ-ধর্মঘটের কর্মসূচি দেয়া হয়েছে। পাটকলগুলোতে শ্রমিকদের ৮ সপ্তাহের মজুরি ও কর্মচারীদের দুই মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। আর্থিক সঙ্কটে কাঁচা পাট কিনতে না পারায়, পাটকলগুলোতে উৎপাদনে ধস নেমেছে। এর মধ্যে বিজেএমসি ২৮ মার্চের মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলে মজুরি কমিশন বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দেয়। কিন্তু দাবি না মানায় বাধ্য হয়ে আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করে শ্রমিকরা। ইউএনবি।

sheikh mujib 2020