advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 20 মিনিট আগে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম (এসএম) হলে গতকাল সন্ধ্যায় মেয়েদের উপর হামলা এবং ডিম ছুঁড়ে মারার অভিযোগ 'নাটক' বলে দাবি করেছে ডাকসুর এজিএস এবং বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন। বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, 'মেয়েদের ওপর হামলার প্রশ্নই আসে না।'

saddam hossain du student league

সাদ্দাম হোসেন বলেন, 'গতকাল মূলত হামলার নাটক সাজানো হয়েছে। এভাবে ছাত্রলীগের ভাবমূর্তি নষ্টের চেষ্টা করা হচ্ছে। এসবের ওপর ভিত্তি করে বিশ্ববিদ্যালয়ে তথাকথিত ভুঁইফোড় সংগঠনের উদ্ভব হয়েছে। ছাত্রলীগ মেয়েদের ওপর কোন হামলা করেনি। হামলার প্রশ্নই আসে না।'

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, 'অভিযোগগুলো আকাশ-কুসুম। আপনারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কিছু ভিডি দেখেছেন। যেখানে হল প্রভোষ্টের সঙ্গে কথোপকথনে নুর স্বীকার করেছে তাদের প্রক্রিয়া ভুল ছিল।'

সাদ্দাম বলেন, 'নুর বাইরে এসে সাংবাদিকদের বলেছে, সেখানে নাকি কোন নারী শিক্ষার্থী যায়নি। কিন্তু ভিতরের ছবি আমরা দেখেছি। প্রভোষ্ট অফিসে তার সঙ্গে ছাত্রী ছিল। কিন্তু পরে বলছে ছাত্রী ছিল না। আমরা কোন অবস্থাতেই এটা প্রত্যাশা করিনা।'

ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর এসএম হলে সেখানে জনপ্রিয়তা বাড়াতে গিয়েছিলেন বলে মন্তব্য করেন ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম। নুরকে দায়িত্বশীল আচরণ করার আহবান জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, ছাত্রলীগের হামলায় এক শিক্ষার্থী আহত হওয়ার ঘটনায় লিখিত অভিযোগ জানাতে মঙ্গলবার বিকালের দিকে ঢাবির এসএম হলে যান ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর, সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন, শামসুন নাহার হলের ভিপি তাসনিম আফরোজ ইমি, কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা ফারুক হাসান, রাশেদ খান, অরণী সামন্তি, বেনজির, দিপ্তীসহ আরো অনেকে। এসময় তাদের অবরুদ্ধ করে রাখা ও হামলার ঘটনা ঘটে। পরে এই ঘটনার বিচারের দাবিতে তারা ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান নেন।

পরে সারারাত সেখানে অবস্থানের পর বুধবার সকালে ভিপি নুরসহ অন্যদের সঙ্গে বৈঠক করেন ঢাবির ভিসি আকতারুজ্জামান। বৈঠক শেষে হামলার বিচারের দাবি ও বহিরাগতদের হল ছাড়ানোর জন্য আগামী সোমবার পর্যন্ত আল্টিমেটাম দেন নুর। এরমধ্যে সমাধান না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করার হুমকি দেন।

sheikh mujib 2020