advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 48 মিনিট আগে

গ্রিন লাইন পরিবহনের বাসচাপায় পা হারানো প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারকে আদালতের আদেশের পরও ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ না দেওয়ায় পরিবহনটির ব্যবস্থাপককে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আদালতের আদেশ কার্যকর করা না হলে গ্রিন লাইন পরিবহনের সব গাড়ি সিজ করে নিলামে দিয়ে ক্ষতিপূরণ দেয়া হবে বলেও জানান আদালত।

bangladesh high court 1

বৃহস্পতিবার বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল আদেশে আজ দুপুর ২টায় তাকে হাইকোর্টে হাজির হতে বলা হয়েছে।

এর আগে গত ৩১ মার্চ পা হারানো প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখে আপিল বিভাগ। এছাড়া ওইদিন হাইকোর্ট বুধবারের মধে্য রাসেলকে ক্ষতিপূরণের টাকা পরিশোধ করে গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষকে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

কিন্তু রাসেল সরকারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ না দেওয়ায় বৃহস্পতিবার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন,যতবড় বিজনেস ম্যান হোক না কেন কেউ আইনের ঊর্ধ্বে হয়ে যায়নি, একটা সীমা থাকা দরকার।

আদালত আরও বলেন, ক্ষতিপূরণের টাকা পরিশোধ না করলে প্রয়োজনে গ্রিন লাইন পরিবহনের সব গাড়ির চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হবে। সব গাড়ি সিজ করে নিলামে বিক্রির ব্যবস্থা করে রাসেলকে টাকা দেওয়া হবে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার শামসুল হক রেজা। গ্রিন লাইনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো: অজিউল্লাহ।

গত ১২ মার্চ রাসেল সরকারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। পরে এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেন গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষ। আপিল বিভাগও হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন।

গত বছর ২৮ এপ্রিল মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারে কথা কাটাকাটির জেরে গ্রিন লাইন পরিবহনের বাসচালক ক্ষিপ্ত হয়ে প্রাইভেটকার চালকের ওপর দিয়েই বাস চালিয়ে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারের (২৩) বাম পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

পা হারানো রাসেল সরকারের বাবার নাম শফিকুল ইসলাম। গ্রামের বাড়ি গাইবান্ধার জেলার পলাশবাড়িতে। ঢাকার আদাবর এলাকার সুনিবিড় হাউজিং এলাকায় তার বাসা।

এ ঘটনায় সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য উম্মে কুলসুম স্মৃতি হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। ইউএনবি।

sheikh mujib 2020