advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 57 মিনিট আগে

সড়কে দুর্ঘটনারোধে রাজধানীতে সকল চালকের মাদকে সম্পৃক্ততা থাকার পরীক্ষা অর্থাৎ ডোপ টেস্ট করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম আতিক। বৃহস্পতিবার নিরাপদ সড়ক বিনির্মাণে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক বৈঠকে মেয়র এমন ঘোষণা দেন।

bus in dhaka city violence

বৈঠকে চুক্তি ভিত্তিক বাসের প্রথা বাতিল হবে উল্লেখ করে মেয়র আতিক বলেন, 'অল্প সময়ের মধ্যেই ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রসহ বাস মালিক সমিতির সঙ্গে সভা করে চুক্তিভিত্তিক বাস চালানোর প্রথা বাতিল করা হবে।' সরকার সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে বদ্ধ পরিকর বলে ঘোষণা দেন তিনি।

বৈঠকে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে শিক্ষার্থীরা কয়েকটি দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো - ফুটওভারব্রিজ না বসিয়ে জেব্রাক্রসিং স্থাপন করা, প্রতিটি জেব্রাক্রসিংয়ে সিসিটিভি স্থাপন করা, ২০২০ সাল থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠ্য বইয়ে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে একটি অধ্যায় অন্তর্ভুক্ত করা, সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচারণা চালানো, ডিজিটাল ট্রাফিক সিগনাল স্থাপন করা, ৬টি বাস কোম্পানির মাধ্যমে বাস ফ্রেঞ্চাইজের দ্রুত বাস্তবায়ন করা, পর্যাপ্ত ড্রাইভিং স্কুল স্থাপন করা, চুক্তিভিত্তিক বাস চালানো বন্ধ করা, লাইসেন্সবিহীন ড্রাইভারকে দিয়ে বাস চালানো বাস মালিকের বিচার করা।

এ সময় মেয়র শিক্ষার্থীদের সকল দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে পর্যায়ক্রমে যানবাহন ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার সাথে যুক্ত সংস্থাগুলোকে শিক্ষার্থীদের দাবি বাস্তবায়নের অনুরোধ জানান।

তিনি বলেন, ‘আমরা মালিবাগ থেকে কুড়িল বিশ্বরোডকে মডেল সড়ক হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ শুরু করেছি। প্রতিটি জেব্রাক্রসিংয়ে পুশ বাটন ও ফ্লাশলাইট স্থাপন করা হবে। তাছাড়া সড়কে ফেন্সিং স্থাপন করা হচ্ছে যাতে কেউ যত্রতত্র রাস্তা পার হতে না পারে। বাস থামার জন্য নির্ধারিত স্টপেজ ও যাত্রী ছাউনি স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। স্টপেজ ছাড়া অন্য কোথাও বাস থামতে পারবে না।’

মেয়র আতিক আরও বলেন, ‘বাস ফ্রেঞ্চাইজের কাজ আগামী দুই বছরের আগেই সমাপ্ত হবে।’ যানবাহনের ফিটনেস স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরীক্ষা করার জন্য বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ) প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে তিনি অনুরোধ জানান। তাছাড়া যানবাহন চালকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদানে তিনি বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসার অনুরোধও জানান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুল হাই, বিআরটিএ চেয়ারম্যান মো. মশিউর রহমান, ডিএনসিসির প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুহাম্মদ যুবায়ের সালেহীন, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক বিভাগ) মীর রেজাউল আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

sheikh mujib 2020