advertisement
আপনি দেখছেন

খাগড়াছড়ি সদর পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত তৌহিদুজ্জামান (৩৫) নামে এক পুলিশ কনস্টেবলের খোঁজ মিলছে না গত চারদিন ধরে। ১৫ দিনের ছুটি নিয়ে বাগেরহাটে পরিবারের কাছে যাওয়ার পথে গত ২০ নভেম্বর ঢাকার মাওয়া ঘাট থেকে নিখোঁজ হন তিনি।

touhiduzzamans familyতৌহিদুজ্জামানের পরিবার

এমন দাবি করে নিখোঁজ পুলিশ সদস্যের স্ত্রী মোসলেমা খাতুন জানান, তার স্বামী নিখোঁজের বিষয়টি জানিয়ে বাগেরহাট সদর থানায় ও খাগড়াছড়িতে পৃথক দুটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। পুলিশ তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করলেও গত চার দিনে কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

শনিবার তিনি আরো বলেন, ১৫ দিনের ছুটি নিয়ে গত ২০ নভেম্বর দুপুরে তৌহিদ বাগেরহাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। পথে আমাকে বেশ কয়েকবার ফোন করেনম সর্বশেষ রাত ১১টা ২০ মিনিটে ফোনে জানান মাওয়া ঘাট পর্যন্ত এসেছেন। এরপর তার সঙ্গে আর কোনো কথা হয়নি, ফোন বন্ধ রয়েছে। তিনি কেন এবং কিভাবে নিখোঁজ হলেন তা বুঝে উঠতে পারছেন না স্ত্রী মোসলেমা খাতুন।

নিখোঁজ তৌহিদুজ্জামান সাতক্ষীরা সদরের গোবরদাঁড়ি গ্রামের শেখ শামসুল মাস্টারের ছেলে। প্রায় দশ বছর বাগেরহাটে চাকরি করার সুবাদে শহরের পুরাতন পুলিশ লাইন সংলগ্ন একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতেন তার স্ত্রী মোসলেমা খাতুন ও দুই সন্তান মিফতাহুল জান্নাত ও মুসফিক জামান হোসাইন। এর মধ্যে জান্নাত শহরের সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে আর শুসফিরের বয়স আড়াই বছর।

এ বিষয়ে বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. মিজানুর রহমান বলেন, নিখোঁজের পরিবার খাগড়াছড়ি ও বাগেরহাট মডেল থানায় পৃথক দুটি সাধারণ ডায়েরি করেছে। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি, তার মুঠোফোনের অবস্থান শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে।

sheikh mujib 2020