advertisement
আপনি দেখছেন

পশ্চিমবঙ্গে জাতীয় নাগরিক নিবন্ধন (এনআরসি) তৈরি আতঙ্কে দেশের সীমান্তে ভারতীয় অনুপ্রবেশকারীদের সংখ্যা বেড়েই চলছে। রোববার অবৈধভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের দায়ে ৩২ নারী-পুরুষ ও শিশুকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। বেনাপোলের দৌলতপুর সীমান্তের একটি আমবাগান থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

nrc border bgbসীমান্তে ৩২ ভারতীয় অনুপ্রবেশকারী আটক

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিজিবি ৪৯ দৌলতপুর ক্যাম্পের কমান্ডার মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আটককৃতদের মধ্যে ১৭ জন পুরুষ, ১৩ জন নারী ও দুজন শিশু রয়েছে। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ তাদেরকে অবৈধভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করায়।

তিনি বলেন, রোববার ভোরে বিজিবি সংবাদ পায়, বিপুলসংখ্যক নারী-পুরুষ ও শিশু অবৈধভাবে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে। পরে তাদেরকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে নভেম্বর মাসের প্রথম ১০ দিনে মহেশপুর, পলিয়ানপুর, খাশালপুর পয়েন্ট দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় মোট ২১৪ জনকে আটক করা হয়। তাদের মধ্যে ৬৭ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক, ৬৯ জন পুরুষ ও ৭৮ জন নারী।

এ বিষয়ে বিজিবি ৫৮ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল কামরুল আহসান বলেন, স্থানীয়দের অত্যাচারের মুখে ভারতে থাকা বাঙালি মুসলমানরা বিজিবির চোখ ফাঁকি দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছে। তবে সীমান্তে বিজিবি কড়া নজর রাখছে।

এদিকে ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের সদস্যরা জানান, যশোরের বেনাপোল ও অন্যান্য সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় ১১৫ জন ভারতীয় অনুপ্রবেশকারীকে আটক করা হয়। তাদের মধ্যে ২০ জন অপ্রাপ্তবয়স্ক, ৬৭ জন পুরুষ ও ২৮ জন নারী।

আটককৃতদের বরাত দিয়ে বিজিবি ও পুলিশ জানায়, আটককৃতদের বেশির ভাগই ভারতীয় বাঙালি মুসলমান। তারা এনআরসি থেকে বাদ পড়া, হয়রানি ও আটকের আশঙ্কায় ভারত থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসছেন। সীমান্ত পার হতে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীরা তাদের বাধা দেয়ার বদলে কার্যত সহায়তা করছেন।

তারা আরও জানান, আসামের এনআরসি থেকে বাদ পড়া অনেকে সেখান থেকে বেঙ্গালুরুতে চলে যান। সম্প্রতি বেঙ্গালুরুতে ভারতীয় পুলিশ অবৈধ অভিবাসী বিরোধী অভিযান শুরু করলে তারা পালিয়ে এখন বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করছে। ফলে চলতি মাসের প্রায় প্রতিদিনই সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করছে ভারতীয়রা।