advertisement
আপনি দেখছেন

সৌদি আরব থেকে বাঁচার আকুতি জানিয়ে ভিডিও বার্তা পাঠানো হ‌বিগঞ্জের গৃহবধূ হোসনা আক্তার অবশেষে দে‌শে ফিরছেন। বুধবার রাত ১১টায় সৌদি এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে রিয়াদ হয়ে দেশে পাঠানো হচ্ছে তাকে। দেশে ফেরার বিষয়টি হোসনা নিজেই নিশ্চিত করেছেন।

hosna worker soudiগৃহবধূ হোসনা আক্তার

এ বিষয়ে ব্র্যা‌কের অভিবাসন কর্মসূ‌চির প্রধান শ‌রিফুল হাসান বলেন, কোনো উপায় না পেয়ে ২৪ নভেম্বর ব্র্যাকের সহায়তা চেয়ে আবেদন করেন হোসনার স্বামী শফিউল্লাহ। এরপর নিরাপদে হোসনাকে দেশে ফেরত আনতে পরিবারটিকে সার্বিক সহায়তার সিদ্ধান্ত নেয় ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম।

এর আগে মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক সংবাদ বিজ্ঞ‌প্তি‌তে জানায়, নারী গৃহকর্মী হোসনা আক্তারকে উদ্ধারের পর পুলিশের নজরদারিতে সেইফহোমে রাখা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটের উদ্যোগে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে।

হোসনার পরিবার সূত্রে জানা যায়, দালাল শাহীন মিয়া ও প্রস্তাবিত রিক্রুটিং এজেন্সি আরব ওয়ার্ল্ড ডিস্ট্রিবিউশনের প্রলোভনে পড়ে এজেন্সি আল-সারা ওভারসীস (আরএল-৭৫২) এর মাধ্যমে সৌদি যায় হোসনা। সৌদি যাওয়ার পর থেকে সেখানে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন ব‌লে তিনি অভি‌যোগ করে‌ন।

হোসনা ভিডিও বার্তায় তার ওপর চালানো নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে জীবন বাঁচানোর আকুতি জানান স্বামী শফিউল্লাহর কাছে। কোনো উপায়ন্তর না পেয়ে শফিউল্লাহ ছুটে যান দালাল ও আরব ওয়ার্ল্ড ডিস্ট্রিবিউশন অফিসে। তারা হোসনা‌কে দেশে আনতে দুই লাখ টাকা দাবি করেন পরিবারের কাছে।

হোসনা আক্তারের গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার আজমিরিগঞ্জ উপজেলায়। তার পিতার নাম মো. মুজিবুর রহমান। ইউএনবি।