advertisement
আপনি দেখছেন

গুলশানের হলি আর্টিজান ক্যাফেতে হামলার ঘটনায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গির মাথায় আইএসের পতাকা সংবলিত টুপি কারাগার থেকেই এসেছে। প্রাথমিক তদন্ত শেষে শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মো. মাহবুব আলম।

cafe attack capআইএসের পতাকা সংবলিত টুপি পরিহিত জঙ্গি (মাঝে)

মো. মাহবুব আলম বলেন, টুপি পকেটে করে নিয়ে আসেন জঙ্গিরা। তাই এত নিরাপত্তা থাকা সত্ত্বেও প্রথমে তা দৃশ্যমান হয়নি। পরবর্তীতে আদালত চত্বরে এসে পতাকা সংবলিত অংশটি উল্টিয়ে পড়েন তারা।

তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের বিষয়ে তিনি বলেন, জবানবন্দি ও সাক্ষ্যপ্রমাণের জন্য কিছুটা সময় লাগবে। তারপরই আদালতে প্রতিবেদনটি দাখিল করা হবে। তবে প্রাথমিক তদন্তের কাজ শেষ।

এর আগে বুধবার বহুল আলোচিত এ মামলার রায়ে সাতজনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ ও একজনকে খালাস দেয় সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান। রায়ের পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গির মাথায় আইএসের পতাকা সংবলিত টুপি দেখা যায়। আদালত চত্বরে এত নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা থাকা সত্ত্বেও কীভাবে তাদের মাথায় এ টুপি আসে, তা নিয়ে ওঠে নানান প্রশ্ন।

পরে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় তদন্তে নামেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি। ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ডিবি) মাহবুব হোসেনকে প্রধান করে এ কমিটি গঠন করা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ১ জুলাই হলি আর্টিজান ক্যাফেতে সশস্ত্র জঙ্গিরা হামলা চালিয়ে ১৭ বিদেশিসহ ২২ জনকে হত্যা করে। তাদের মধ্যে ইতালির নয়, জাপানের সাত, ভারতের এক, বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত আমেরিকান এক, বাংলাদেশি দুজন নাগরিক এবং দুজন পুলিশ সদস্য রয়েছেন। হামলার পেছনে ২১ জন জড়িত ছিলেন বলে জানা যায়। যাদের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১৩ জন নিহত হন।

sheikh mujib 2020