advertisement
আপনি দেখছেন
সর্বশেষ আপডেট: 23 মিনিট আগে

পরিবারের অজান্তে বিয়ের দুই মাসের মাথায় স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ মাসুদুর রহমান রুবেলের। কিন্তু স্ত্রী ফারজানা খানম রিনি সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে আদালতে যৌতুক দাবির অভিযোগ তুলেছেন।

masudur rahman rubelচট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ মাসুদুর রহমান রুবেল

ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালতে সোমবার মামলাটি দায়েরের পর আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে আসামিকে আগামী ২৯ জানুয়ারি আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেছেন। বাদীপক্ষের আইনজীবী কাওসার আহম্মেদ এসব তথ্য জানিয়েছেন।

কাওসার জানান, আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে বাদী রিনি বলেছেন ‘মাসুদুর রহমান গত ২৯ নভেম্বর আমার কাছে ৫০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। যৌতুক দিতে অস্বীকার করলে অন্যত্র বিয়ে করার হুমকি দেন তিনি। তিনি আমাকে ঘরে তুলে নেবেন না বলেও জানান। আমি এর বিচার চাই।’

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, ‘বাদী ও আসামির মধ‌্যে দীর্ঘদিনের পরিচয় ও প্রেমের পরিণতি হিসেবে তাদের বিয়ে হয়। তারা পরিবারকে না জানিয়ে গত ২০ সেপ্টেম্বর বিয়ে করেন। আসামি বাদীকে বিয়ের কথা গোপন রাখতে বলেন এবং পরে পারিবারিকভাবে সবার সম্মতিক্রমে সামাজিক মর্যাদা দিয়ে বাদীকে ঘরে তুলবেন বলে জানান। এক মাস ধরে আসামির সরকারি চাকরি ও সামাজিক মর্যাদা অনুসারে আসামি বাদীর বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক বাবদ নগদ ৫০ লাখ টাকা, একটি ফ্ল্যাট, একটি নতুন প্রাইভেটকার ও ৩০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার এনে দিতে বলেন।’

এ বিষয়ে চট্টগ্রামে কর্মরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদুর রহমান বলেন, ‘তার সঙ্গে আমার মিলছে না। তাই আমরা দুজনে পরামর্শ করে আইনগতভাবে আলাদা হয়েছি। আমি গত ১৭ নভেম্বর তাকে তালাক দিয়েছি। এর আগে নোটিশ করেছি।’

যৌতুকের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি কেন যৌতুক চাইবো..? সে তালাকের বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দিয়েছিল। আর আজকে জানলাম আমার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছে। এটি শতভাগ মিথ্যা অভিযোগ।’ ইউএনবি।

sheikh mujib 2020