advertisement
আপনি দেখছেন

মেহেরপুর শহরের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের সামনে দুইদিন ধরে ঘিরে রাখা বোমাসদৃশ বস্তুটি আসলে বোমা নয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। শনিবার সকালে কাউন্টার টেররিজমের বোম্ব ডিস্পোজাল ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে বস্তুটি উদ্ধার করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানোর পর এ তথ্য জানানো হয়।

bomb found in meherpurমেহেরপুরে উদ্ধার করা বোমাসদৃশ বস্তুটি

মেহেরপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ জাহিদুল ইসলাম জানান, বোম্ব ডিস্পোজাল ইউনিটের সদস্যরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে জানিয়েছেন, বস্তুটি বোমার মতো দেখতে হলেও এটি বোমা নয়। জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করার জন্য কেউ ব্যাগে ভরে বস্তুটি রেখে গিয়েছিল।

তিনি আরো জানান, তিনটি প্লাস্টিকের পাইপে বালু ভরে লাল রঙের টেপ দিয়ে বস্তুটিকে পেঁচিয়ে রাখা হয়েছিল, যাতে এটি দেখতে বোমার মতো মনে হয়। পাশাপাশি জনমনে বোমার আতঙ্ক সৃষ্টির জন্য সার্কিটযুক্ত কয়েকটি তার জুড়ে দেয়া হয়েছিল।

বোমাসদৃশ বস্তুটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার সময় একটি শব্দ হয়, যা সম্পর্কে জাহিদুল ইসলাম জানান, ইলেক্ট্রিক ডিভাইসযুক্ত বস্তুটি পরীক্ষার সময় পজিটিভ-নেগেটিভ তার একসাথ হওয়ায় ওই শব্দটি হয়েছিল। এটি স্বাভাবিক। তবে বস্তুটি বোমা নয়।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুপুরে মেহেরপুর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসের গেটের পাশে একটি ইলেক্ট্রিক ডিভাইসযুক্ত বোমসদৃশ বস্তু পড়ে থাকতে দেখেন অফিসের কর্মচারীরা। সঙ্গে সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে খবর দেয়া হলে তাদের একাধিক দল ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে বস্তুটি ঘিরে ফেলে। সেখান থেকে আনসারুল ইসলাম জঙ্গি সংগঠনের একটি চিরকুটও উদ্ধার করে পুলিশ।