advertisement
আপনি দেখছেন

চট্টগ্রাম বিমানবন্দরগামী যাত্রীদের যানজট ও দুর্ভোগ কমাতে কর্ণফুলী নদীতে ওয়াটার বাস চলাচল শুরু হয়েছে। সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে নগরীর সদরঘাট থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত নৌপথে এ ওয়াটার বাস চলাচল শুরু হয়।

water bus chattagramকর্ণফুলী নদীতে ওয়াটার বাস চালু

গত কয়েকদিন ধরে নগরীর বিশিষ্ট ব্যক্তিদের পরীক্ষামূলকভাবে এ সার্ভিস পরিদর্শন করে দেখার পরই তা চালু করা হলো। ওয়াটার বাসটি পরিচালনা করছে এসএস ট্রেডিং নামে একটি প্রতিষ্ঠান।

এ বিষয়ে এসএস ট্রেডিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাব্বাব হোসেন বলেন, প্রাথমিকভাবে দুটি ওয়াটার বাস নামানো হয়েছে। আজ থেকে যাত্রীদের সেবা দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া এই নৌপথে নতুন নতুন সেবা যুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে।

ওয়াটার বাসের পরিচালনাকারী সংস্থা এই রুটে ৩৫০ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করেছে। ওয়াটার বাসে নদীপথে সদরঘাট থেকে বিমানবন্দর যাওয়ার ঘাট পর্যন্ত পৌঁছতে সময় লাগবে ২০ থেকে ২৩ মিনিট।

পরিচালনাকারী সংস্থা এসএস ট্রেডিং জানায়, প্রাথমিকভাবে প্রতিদিন সদরঘাট থেকে সকাল ৭টা, ৮টা, দুপুর ১২টা ১৫ মিনিট, বেলা ৩টা ও সন্ধ্যা ৭টায় পাঁচটি ওয়াটার বাস পতেঙ্গার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। ফিরতি পথে পতেঙ্গা থেকে সকাল সাড়ে ৮টা, বেলা সাড়ে ১১টা, বেলা ২টা ২৫ মিনিট, বিকাল সাড়ে ৪টা ও রাত ৯টা ১৫ মিনিটে সদরঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। প্রতিদিন ১০ বার আসা-যাওয়া করবে ওয়াটার বাস।

বিমানবন্দরমুখী চট্টগ্রাম বন্দর সড়কে যানজট কমাতে এই নৌপথে যাত্রী পরিবহন সেবা চালুর উদ্যোগ নেয় চট্টগ্রাম বন্দর। বন্দর কর্তৃপক্ষ সদরঘাট ও পতেঙ্গা দুই স্টেশনে টার্মিনাল ও জেটি সুবিধা তৈরি করেছে।

যাত্রী পরিবহন সেবা পরিচালনার জন্য নিয়োগ দিয়েছে চিটাগাং ড্রাই ডক লিমিটেড (সিডিডিএল) ও এসএস ট্রেডিংকে। তারা বন্দরকে বার্ষিক ভাড়া দিয়ে এই নৌপথে যাত্রী পরিবহন করবে।

২৫ জন যাত্রী ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এ ওয়াটার বাসে রয়েছে লাগেজ রাখা ও ওয়াইফাই সুবিধা। পতেঙ্গা টার্মিনাল থেকে শাটল বাসে যাত্রীদের বিমানবন্দরে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। কোনো বিমানযাত্রী সদরঘাট বা পতেঙ্গা টার্মিনালে এসে তাদের মালামাল এসএস ট্রেডিং স্টাফদের বুঝিয়ে দিলে তারা নিজ দায়িত্বে এসব গন্তব্যে পৌঁছে দেবেন। ইউএনবি।