advertisement
আপনি দেখছেন

বগুড়ায় পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। বুধবার সেখানে খুচরা বাজারে দুই জাতের পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৬০ টাকা এবং ৪০ টাকা কেজি দরে। বাজারে দেশীয় নতুন পিয়াজের সরবরাহ ভাল হওয়ায় পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, এবার অন্যান্য জেলায়ও কমতে থাকবে পেঁয়াজের দাম।

peyaj

বগুড়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, বগুড়া জেলায় গত ২০১৬-১৭ মৌসুমে পেঁয়াজ চাষ হয় ৩ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে। এর বিপরীতে ফলন হয়েছে ৩৪ হাজার ৭৫০ মেট্রিক টন। ২০১৭-১৮ মৌসুমে পেঁয়াজ চাষ হয় ৩ হাজার ৪০০ হেক্টর। এর বিপরীতে ফলন হয়েছে ৩৪ হাজার ১০০ মেট্রিক টন। ২০১৮-১৯ মৌসুমে পেঁয়াজ চাষ হয় ৩ হাজার ৮০০ হেক্টর। এর বিপরীতে ফলন হয়েছে ৩৯ হাজার ৯০৫ মেট্রিক টন।

চলতি বছর চাষ হয়েছে ৩ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে। এর বিপরীতে ফলনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়ছে ৩২ হাজার ৬০০ মেট্রিক টন।

কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, ফলনের সময় মাঠ পর্যায়ে গেলে পেঁয়াজের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আরও বাড়বে। মৌসুম শেষে ফলন দাঁড়াবে প্রায় ৪০ হাজার মেট্রিক টন।

কৃষি অফিস সূত্রে আরো জানা যায়, বন্যা ও খড়া বাদ দিয়ে গত কয়েক বছরে বগুড়ায় পেঁয়াজের ফলন বেড়েছে। ২০১৭-১৮ মৌসুমে বন্যার পানি বগুড়ার সারিকান্দি, সোনাতলা ও ধুনট উপজেলায় দেরিতে নেমে যাওয়ায় পেঁয়াজের ফলন কিছুটা কমে যায়। পরের বছর আবার ভাল ফলন পায় চাষিরা। এ বছরের অক্টোবর মাস থেকে চাষবাস শুরু হয়েছে। চাষিরা বলছেন, এ বছরও ভাল ফলন পাবে।

বগুড়ার খুচরা কাঁচা মালামাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, পাতা পেঁয়াজ বুধবার বিক্রি হয়েছে ৪০ থেকে ৬০ টাকা আর পাতা ছাড়া নতুন পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৮০ থেকে ৭০ টাকা কেজিতে।

বগুড়া শহরের রাজাবাজার আড়ৎদার ও ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও আমদানিকারক শ্রী পরিমল কুমার প্রসাদ রাজ সাংবাদিকদের বলেন, দেশে উৎপাদিত নতুন পেঁয়াজ বাজারে আসতে শুরু করেছে। বুধবার নতুন পেঁয়াজ পাতা ছাড়া পাইকারি বাজারে বিক্রি হয়েছে ৬০ টাকা কেজি। আশা করা হচ্ছে এখন থেকে পেঁয়াজের দাম কমতে থাকবে।