advertisement
আপনি দেখছেন

বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে যুক্ত করেছে এশিয়া প্যাসিফিক নেটওয়ার্ক ইনফরমেশন সেন্টার (এপনিক)। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলা ভাষার প্রতি সম্মান জানিয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

apnic yearly confarence

শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন শহরে এপনিকের ৩৯তম সম্মেলনের সমাপনী দিনে আয়োজিত বার্ষিক সাধারণ সভায় বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে ঘোষণা দেন সংগঠনের নির্বাহী কমিটির চেয়ার গৌরব রাজ উপাধ্যায়। এর আগে একই সভায় সংগঠনের এনআরও-এএনসি ও ফাইবার অ্যাট হোমের ডিজিএম সাইমন বাড়ৈ এমনিকের নির্বাহী কমিটির কাছে বাংলা ভাষাকে তাদের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে যুক্ত করার আহ্বান জানান।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সংগঠনের যোগাযোগ ব্যবস্থাপক সিয়েনা পেরি জানান, বাংলাকে এপনিকের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাব পেয়ে কর্তৃপক্ষ তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। যত দ্রুত সম্ভব এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন ও ডেভেলপমেন্টের কাজ শুরু করবে এপনিক কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. নূর উর রহমান বলেন, এটি খুবই আনন্দের সংবাদ। বিশ্বের ৩২ কোটি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলে। আর বাংলাদেশ সেই ভাষারই প্রতিনিধিত্ব করে। এ ভাষা অবশ্যই এপনিকে থাকা উচিত।

গত মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন শহরে বসে এবারের এপনিক সম্মেলন। পাশাপাশি শুরু হয় এশিয়া প্যাসিফিক ইন্টারনেট কনফারেন্স অন অপারেশনাল টেকনোলজি- ২০২০ (অ্যাপ্রিকট)। সম্মেলনের শেষ দিনে শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয় এপনিকের বার্ষিক সাধারণ সভা। আর এই সভাতেই বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে অন্তর্ভুক্তির ঘোষণা দেয় সংগঠনটি।

আগামী বছর সংগঠনের ৫০তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশে। এর পরের বছর ৫১তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে জাপানে।