advertisement
আপনি দেখছেন

ভারতের জনপ্রিয় টিভি অনুষ্ঠান ক্রাইম পেট্রোল দেখে চুরির অভিনব কৌশল রপ্ত করে তা প্রয়োগের মাধ্যমে বিভিন্ন বাসায় চুরি করতো মো. সোহান নামের এক চোর। সম্প্রতি তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোববার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

dmp gulshan press

তিনি বলেন, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পল্লবী থানার শহীদবাগ কালাপানি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর এই তথ্য।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার সোহান জানায়, সে নিয়মিত ক্রাইম পেট্রোল দেখে চুরির কাজে লিপ্ত হয়। আর এ কাজে দিনের বেলাকে সে বেছে নিতো। প্রথমেদিকে একজন সহযোগী থাকলেও পরবর্তীতে একাই চুরির কাজে নেমে পড়ে। এ জন্য যে সকল বাসায় লাইট-ফ্যান বন্ধ থাকে এবং সিকিউরিটি গার্ড থাকে না সে সকল বাসাগুলোতে চুরির জন্য টার্গেট করে।

এরপর টার্গেট অনুযায়ী রেঞ্জ, স্ক্রু ড্রাইভার, হেসকো ব্লেড, টেস্টার, ডুপ্লিকেট চাবিসহ চুপিসারে ওই বাসায় তালা ভেঙে/খুলে কিংবা ডোরলক থাকলে দরজায় পিঠ লাগিয়ে সজোরে ধাক্কা দিয়ে দরজা খুলে প্রবেশ করে চুরি করতো। আর যদি টার্গেটকৃত বাসায় দারোয়ান থাকে তাহলে তার গতিবিধি লক্ষ্য করে সুযোগমতো বাসায় প্রবেশ করে- যোগ করেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

পরবর্তীতে সোহানের দেয়া তথ্যমতে তার বাসায় অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে একটি ৭.৬২ বিদেশি পিস্তল, পিস্তলের ম্যাগাজিন, এক রাউন্ড গুলি, ৩০০ গ্রাম গাঁজা, নগদ ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা, একটি স্টেইনলেস স্টিলের চাকু, একটি স্টেইনলেস স্টিলের খুর, ১১টি মোবাইল, একটি কোডাক ক্যামেরা, একটি ক্যানন ক্যামেরা, দুটি স্ক্রু ড্রাইভার, লোহার তৈরি ছয়টি র্যাথ, স্টেইনলেস স্টিলের দুটি রেঞ্জ, পাঁচটি ঘড়ি, ছোট স্ক্রু ড্রাইভার চারটি, স্টিলের সন চারটি, তালার চাবি ২২টি, নাইফ দুটি, একটি ম্যাগনিফাইং গ্লাস, একটি ট্যাব, মানিব্যাগ একটি, একটি ফেভিকল সুপার গ্লু, বিভিন্ন ধরনের ইমিটেশন চুড়ি পাঁচটি, ইমিটেশন আংটি পাঁচটি, ইমিটেশন গলার হাড় ছয়টি, ইমিটেশন গলার চিক একটি, পাথর সংযুক্ত কানের দুল দুটি, ইমিটেশনের কানের দুল চার জোড়া, ইমিটেশনের ব্রেসলেট দুটি, এক জোড়া রূপার পায়ের নুপুর, একটি কালো রংয়ের রিচার্জেবল টর্চ লাইট ও একটি লাল রংয়ের বড় সাইজের হাতলযুক্ত ব্যাগ উদ্ধার করা হয়।