advertisement
আপনি দেখছেন

নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারে পেঁয়াজের ঝাঁঝ কমতে না কমতেই মসলার বাজারে উত্তাপ ছড়াচ্ছে এলাচ। গুরুত্বপূর্ণ এ মসলার দাম গত ১০-১৫ বছরের মধ্যে এবার সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। হঠাৎ করে এলাচের এ রেকর্ড দামে হতবাক ক্রেতারা।

elach pic

বাজার সংশ্লিষ্টরা জানান, কেজি প্রতি ভালো মানের এলাচের দাম ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে ছয় হাজার টাকায় পৌঁছায়। যা ৫০০-৬০০ টাকা কমে বর্তমানে ৪ হাজার ৮০০ টাকা থেকে ৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাঝারি মানের এলাচের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪ হাজার থেকে ৪ হাজার ৪০০ টাকা।

সরকারের বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) দৈনন্দিন খুচরা বাজারদরের প্রতিবেদন মতে, এক বছর আগে প্রতি কেজি এলাচের দাম ছিল ১৬০০-২০০০ টাকা। এ পণ্যের দাম ধাপে ধাপে বেড়ে চলতি বছরের জানুয়ারিতে ৪২০০-৪৬০০ টাকায় পৌঁছায়। জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে তা আরো বেড়ে ৪৩০০-৫০০০ টাকা হয়। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে এলাচের দাম ৬০০০ টাকার সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়ে। 

রাজধানীর বেশ কয়েকটি মসলার বাজার ঘুরে গতকাল দেখা গেছে, এলাচের দাম ধরা-ছোঁয়ার বাইরে চলে যাওয়ায় বাধ্য হয়ে ৫০-১০০ টাকায় গুটি কয়েক এলাচ কিনে বাড়ি ফিরছেন অনেক সাধারণ ক্রেতা। ক্রেতা ও বিক্রেতারা বলছেন, গত দশ-পনেরো বছরে এলাচের এমন আকাশচুম্বী দাম তারা দেখেননি।

elach market

কারওয়ানবাজারে গরম মসলা কিনতে আসা একজন সাধারণ ক্রেতা জানান, এলাচের দামের উত্তাপ পেঁয়াজের ঝাঁঝকেও ছাড়িয়ে গেছে। আমাদের মতো মধ্যবিত্ত পরিবারের পক্ষে এত টাকায় মসলা কেনা প্রায় অসম্ভব। কিন্তু বাসায় মেহমান থাকায় বাধ্য হয়ে ৫০ টাকার মসলা কিনতে হলো।

এই বাজারের মসলা ব্যবসায়ী মো. জুয়েল জানান, পাইকারী বাজারে এলাচের দাম বাড়ায় খুচরা বাজারেও তার প্রভাব পড়েছে। ফলে ছোট এলাচের চাহিদা বেড়েছে। ছোট এলাচ প্রতি কেজি ৩ হাজার ২০০ টাকা থেকে ৩ হাজার ৪০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।