advertisement
আপনি দেখছেন

ক্যাসিনোকাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়া যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা জি কে শামীম গোপনে হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়েছিলেন, যা জানতো না রাষ্ট্রপক্ষ। বিষয়টি গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে প্রকাশের পরই তোলপাড় শুরু হয়। যদিও আজ রোববার তার জামিন বাতিল করেছে আদালত। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাওয়ার পর মুখ খুললেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। 

anisul haq     

তিনি বলেছেন, ‘জি কে শামীমের হাইকোর্ট থেকে জামিন নেওয়ার ব্যাপারে রাষ্ট্রপক্ষের না জানার বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখনজক।’   

রাজধানীর আগারগাঁওয়ের হোটেল প্যান প্যাসিফিকে রোববার দুপুরে ‘ব্যবসা সহজীকরণের সম্পত্তি নিবন্ধন সূচক নিয়ে কর্মশালা ও মতবিনিময় সভা’ শেষে জি কে শামিমের জামিনের বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের না জানা প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘এটা অত্যন্ত দুঃখজনক একটা বিষয়। আইনে স্পষ্ট বলা আছে, জামিনের ব্যাপারে উভয় পক্ষকেই শুনতে হবে। ডেপুটি অ্যাটর্নি যে বলেছিলেন, তিনি কিছু জানতেন না, সেটার তদন্ত করা হবে।’  

ইতোমধ্যে ওই জামিন বাতিল করা হয়েছে উল্লেখ আনিসুল হক বলেন, ‘আমি এ নিয়ে অ্যাটর্নি জেনারেলের সঙ্গে কথা বলেছি। এই ঘটনায় কোনো গাফিলতি ছিল কিনা, দ্রুত তা দেখার জন্য বলেছি। এ ছাড়া গতকালই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, আপিল করা হবে এ জামিন আদেশের বিরুদ্ধে। শেষ পর্যন্ত তো তার জামিন বাতিল করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২০ সেপ্টেম্বর রাজধানীর নিকেতনে শামীমের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে র‌্যাব তাকে গ্রেপ্তার করে। ওই সময় বিপুল পরিমাণ মাদক এবং নগদ ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা, ১৬৫ কোটি টাকার স্থায়ী আমানতের (এফডিআর) কাগজপত্র, একটি আগ্নেয়াস্ত্র, দেহরক্ষীদের সাতটি শটগান-গুলি এবং কয়েক বোতল বিদেশি মদ জব্দ করার হয়। গত বছরের ওই অভিযানে জি কে শামীমের সাত দেহরক্ষীকেও গ্রেপ্তার করা হয়।

sheikh mujib 2020