advertisement
আপনি দেখছেন

গিয়েছিলেন হত্যা মামলার আসামিকে গ্রেপ্তার করতে। আর ফিরে এলেন তার অসুস্থ বাবাকে রক্ত দিয়ে। মানবিকতার এমনই পরিচয় দিয়েছেন চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বদিউল আলম। শনিবার রাতে এ ঘটনাটি ঘটে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে।

blood donation symbolপ্রতীকী ছবি

জানা যায়, গত বছর ২৫ অক্টোবর ওই থানার আওয়াধীন কৈবল্যধাম রেললাইন এলাকার রশিদ কলোনিতে ছুরিকাঘাতে খুন হন জসিম উদ্দিন নামের এক যুবক। ওই মামলার এজাহারভুক্ত আসামি হলেন এমদাদ হোসেন। তার বাড়ি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার বীর নারায়নপুর গ্রামে। এমদাদকে ধরতেই শনিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চমেক হাসপাতালে অভিযান চালান ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

এসআই বদিউল আলম জানান, এমদাদ ওই হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই পলাতক ছিলেন। শনিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, তিনি তার চিকিৎসাধীন বাবাকে দেখতে চমেক হাসপাতালে আসবেন। তাই তার আসার আগে থেকেই হাসপাতালে গোপনে অবস্থান নেন তিনি। এমদাদ আসলেই সঙ্গে সঙ্গে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

si bodiul alamআসামির বাবাকে রক্তদান করছেন চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বদিউল আলম।

তিনি আরো জানান, গ্রেপ্তারের পর এমদাদ জানান, তার বাবার রক্তের প্রয়োজন এবং তিনি রক্ত সংগ্রহ করতেই এসেছেন। তখন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তার বাবার সত্যিই রক্তের প্রয়োজন এবং এসআই বদিউলের সঙ্গে রক্তের গ্রুপের মিলও আছে। তাই মানবিকতার খাতিরে আসামির বাবাকে রক্ত দেন তিনি।

পরে এমদাদকে আদালতে তোলা হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন, জানান এসআই বদিউল।

তিনি আরো বলেন, প্রসংশিত হওয়ার জন্য তিনি রক্ত দেননি। ওই আসামিকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসলে হয়তো তার অসুস্থ বাবার রক্তের জোগাড় হতো না এবং তার শারীরিক ক্ষতির সম্ভবনা ছিল। আর রক্তের গ্রুপ যেহেতু মিলে গেছে, তাই মানবিকতার কথা বিবেচনা করে রক্ত দিয়েছেন। অন্য কারো রক্তের প্রয়োজন হলেও তিনি একই কাজ করতেন।

sheikh mujib 2020