advertisement
আপনি দেখছেন

সিলেটের নগরীর মীরবক্সটুলায় রাস্তায় হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়া সেই ফিনল্যান্ডের নাগরিকের শরীরে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কোনো উপসর্গ পাওয়া যায়নি। তাই তাকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। এর আগে তিনি শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে পর্যবেক্ষণে ছিলেন।

marko finlandরাস্তায় হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে যাওয়া মার্কোকে উদ্ধার করে হাসপাতাল নেওয়া হচ্ছে। ছবি সংগৃহীত

রোববার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেন সিলেট বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. আনিসুর রহমান।

তিনি বলেন, রাস্তায় হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে যাওয়া মার্কো (৪৩) নামের ওই ফিনল্যান্ডের নাগরিককে করোনা আইসোলেশনে রেখে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের চিকিৎসকরা পর্যবেক্ষণ করেন। কিন্তু তার শরীরে করোনাভাইরাসের কোনো উপসর্গ পাওয়া যায়নি। তাই তাকে এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন আছেন এবং অনেকটা সুস্থ আছেন।

এর আগে গত শনিবার বিকালে সিলেটের মীরবক্সটুলা এলাকার খায়রুন ভবনের পাশের রাস্তায় অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান মার্কো। হঠাৎ এমন ঘটনায় পুরো এলাকায় করোনাভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এমনকি সংক্রমণের ভয়ে কেউ ওই বিদেশিকে সাহায্য করতেও এগিয়ে আসেনি। পরে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের একটি অ্যাম্বুলেন্স এসে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় এবং হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

মার্কো প্রায় দুই মাস আগে ফিনল্যান্ড থেকে বাংলাদেশ ঘুরতে আসেন। গত দেড় মাস ধরে তিনি সিলেট নগরীর হাওয়াপাড়ার একটি হোটেলে অবস্থান করছেন। গত শনিবার বিকালে অসুস্থ বোধ করলে হাসপাতালে যাওয়ার সময় রাস্তায় অজ্ঞান হয়ে পড়েন তিনি।