advertisement
আপনি দেখছেন

৩০ এপ্রিলের মধ্যে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে যে সব নিবন্ধন করা হবে না, সেগুলো স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানিয়েছেন এ কথা।

tarana halim

উল্লেখ্য, ৩০ এপ্রিলেই শেষ হবে আঙুলের ছাপ দিয়ে সিম নিবন্ধনের কার্যক্রম। এরপর আর সময় বাড়ানো হবে না। তবে এই সময়ের মধ্যেও যাদের সিম অনিবন্ধিত থাকবে, তারা সুযোগ পাবেন। পহেলা মে অনিবন্ধিত সিমের বড় একটা অংশ এক ঘণ্টা করে বন্ধ রাখা হবে। দুই মে সেগুলো বন্ধ থাকবে দুই ঘণ্টা। এভাবে সতর্ক করা হবে গ্রাহকদের। আস্তে আস্তে অনিবন্ধিত সিমগুলো চিরতরে বন্ধ করে দেয়া হবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

এর মধ্যেই প্রায় সাড়ে ছয় কোটি সিম নিবন্ধন হয়ে গেছে বলে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন তারানা হালিম। এ মাসের বাকি দিনগুলোতে বাকি থাকা সাড়ে তিন কোটি বা এর চেয়ে কিছু বেশি সিম নিবন্ধন করে ফেলা সম্ভব বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অনিবন্ধিত সিমের পাশাপাশি অবৈধ ভিওআইপিতে ব্যবহৃত সিমও বন্ধ করে দেয়া হবে। সে ক্ষেত্রে নিবন্ধন করা না করার বিষয়টি দেখা হবে না। কারণ সেগুলো অবৈধ কাজে ব্যবহৃত হয়। এভাবেই অনেক সিম বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানান মন্ত্রী।

আঙুলের ছাপ দিয়ে সিম নিবন্ধনের পর ইন্টারনেটের দাম কমানোর দিকে সরকার মনোযোগ দিবে। এরপর চালু করা হবে মোবাইল নম্বর পোর্টেবিলিটি। যে সেবার মাধ্যমে যে কোনো গ্রাহক যে কোনো অপারেটরের সংযোগ নিতে পারবেন এবং সেটা নিজের সিম না বদলেই। অর্থাৎ নম্বর ঠিক রেখেই অপারেটর বদলানোর সেবা চালু করবে বাংলাদেশ।

 
আপনি আরো পড়তে পারেন

জয়ের স্ট্যাটাসের জবাব দিলেন ইমরান এইচ সরকার

আনিসুল হক: এমন সুন্দর টয়লেট আমার বাড়িতেও নেই

বিএনপিতে আরো নতুন ১৮ মুখ

রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ২০ বিদেশিকে শনাক্ত

sheikh mujib 2020