advertisement
আপনি দেখছেন

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ঘটনায় জড়িত অন্যতম আসামি ক্যাপ্টেন (বরখাস্ত) আবদুল মাজেদের ফাঁসির রায় কার্যকরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে এক ভিডিও বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আানিসুল হক।

anisul haque law minister mazedআইনমন্ত্রী আনিসুল হক

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনি মাজেদের দণ্ড কার্যকরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হলেই রায় কার্যকর হবে।

আইনমন্ত্রী জানান, আসামি মাজেদকে কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখায় করোনাভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি আছে কিনা- এমন প্রশ্ন তার কাছে এসেছে। কারণ সে ভারত থেকে পালিয়ে এসেছে এবং তাকে মিরপুর সাড়ে ১১ নম্বর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তবে তিনি বলছেন, সে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। নিয়মানুযায়ী তাকে আসামিদের সলিডারি কনফাইনমেন্টে রাখা হবে। ফলে তার কাছ থেকে করোনাভাইরাস ছড়ানোর কোনো ঝুঁকি নেই।

এর আগে সোমবার দিবাগত মধ্যরাতে রাজধানীর মিরপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। এরপর তাকে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী জুনিয়র অফিসার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এ ঘটনায় ১৯৯৬ সালে করা মামলায় যে ১২ জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয় তার এক জন হলেন বরখাস্ত হওয়া ক্যাপ্টন আবদুল মাজেদ।

দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে ভারতে পালিয়ে ছিলেন তিনি। সম্প্রতি বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ভারতেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে। এ অবস্থায় গত ২৬ মার্চ ময়মনসিংহ সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন তিনি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে রাজধানীর মিরপুর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে সিটিটিসি ইউনিটের সদস্যরা।