advertisement
আপনি দেখছেন

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে ফের ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে এক বাংলাদেশি নিহতের ঘটনা ঘটেছে। আজ শনিবার সকাল ৯টার দিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার তেলকুপি গ্রামের সীমান্ত এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

bsf bullets bangladeshভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)- ফাইল ছবি

নিহত জাহাঙ্গীর আলমের (৫০) বাড়ি তেলকুপি গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের আইনাল হকের ছেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চাঁপাইনবাগঞ্জের ৫৯ রহনপুর বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মাহমুদুল হাসান বলেন, সকালে তেলকুপি সীমান্তে ভারতীয় অংশের ৫০ গজ ভেতরে জাহাঙ্গীরকে গুলি করে হত্যা করে গোপালনগর ক্যাম্পের ২৪ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা। পরে তার মরদেহ বাংলাদেশ ভূ-খণ্ডে ফেলে রেখে যায়।

তিনি আরো বলেন, নিহতের পরিবারের ভাষ্যমতে, জাহাঙ্গীরকে বিএসএফ সদস্য সীমান্ত থেকে ধরে নিয়ে যায় এবং গুলি করে হত্যা করে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ইতোমধ্যে বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফকে একটি প্রতিবাদপত্র দেওয়া হয়েছে এবং পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানানো হয়েছে।

bsf image newভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)- ফাইল ছবি

জাহাঙ্গীরের ভাতিজা মানুদ রানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকার ৯টার দিকে জাহাঙ্গীর ঘাস কাটার জন্য সীমান্ত এলাকায় যান। এ সময় বিএসএফ সদস্যরা তাকে ধরে নিয়ে যায় এবং এক পর্যায়ে গুলি করে হত্যা করে। পরে তার মরদেহ বাংলাদেশ অংশে ফেলে দিয়ে যায়।

সম্প্রতিক সময়ে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বিএসএফের হাতে বাংলাদেশিদের নির্যাতন ও মৃত্যুর ঘটনা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েছে। গতকাল শুক্রবারও যশোরের বেনাপোল ধান্যখোলা সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহত হন রিয়াজুল ইসলাম (৩০) নামের এক যুবক। এর আগে গত ২৬ জুন চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্তে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় দুই বাংলাদেশি গরু ব্যবসায়ীকে। বাবু ওরফে কালু (৩০) ও কদম আলী (৩৫) নামের ওই দুই ব্যক্তিকেও পিটিয়ে জখম করেছে বিএসএফ। তারও আগে ২৩ জুন ময়মনসিংহ ও ২৪ জুন লালমনিরহাট সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে দুই বাংলাদেশির মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

sheikh mujib 2020