advertisement
আপনি দেখছেন

পুঁজিবাজারের ২২টি কোম্পানির ৬১ পরিচালককে ৪৫ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। শেয়ারবাজারের আইন অনুযায়ী ন্যূনতম ২ শতাংশ শেয়ার না থাকায় এসব পরিচালককে আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। ২২টি কোম্পানির মধ্যে বেশির ভাগই বীমা খাতের কোম্পানি। বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

bsec bhababan dhakaবিএসইসি ভবন

জানা যায়, বিএসইসির সদ্য বিদায়ী এম খায়রুল হোসেনের নেতৃত্বাধীন কমিশন ২০১১ সালে ন্যূনতম ২ শতাংশ শেয়ার না থাকলে কেউ শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিচালক পদে থাকতে পারবেন না বলে একটি আইন করে। কিন্তু আইনটি করার ক্ষেত্রে যে রকম তৎপরতা লক্ষ করা গেছে, পরিপালনের ক্ষেত্রে বিএসইসিকে ততটা সক্রিয় মনে হয়নি। ফলে আইনটি উপেক্ষা করেই অনেকে ন্যূনতম শেয়ার না থাকা সত্ত্বেও বছরের পর বছর তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিচালক পদে রয়েছেন। উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে সব সময় সম্মিলিতভাবে ওই কোম্পানির ৩০ শতাংশ শেয়ার থাকতে হবে বলেও ওই আইনে বলা হয়।

চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত দায়িত্ব পালনের পর বিদায় নিয়েছে খায়রুল কমিশন। এখন বিএসইসির পুনর্গঠিত কমিশন ওইসব আইন অমান্যকারী পরিচালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে। তারই অংশ হিসেবে ওই ৬১ পরিচালককে ৪৫ দিনের আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ এই সময়ের মধ্যে ন্যূনতম শেয়ার ধারণের শর্ত পরিপালন করতে হবে। তা না করা হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে পরিচালক পদ থেকে অপসারণের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে। বিএসইসির পক্ষ থেকে গত বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত চিঠি সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

dhaka stok exchange dseঢাকা স্টক একচেঞ্জ

এ ব্যাপারে বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম বলেন, আইন অমান্য করে অনেক বছর ধরে যারা পরিচালক পদে আছেন, তাদের ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের অংশ হিসেবেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পুঁজিবাজারে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হোক সেটাই তারা চান।

যে ২২ কোম্পানির পরিচালককে নোটিস দেওয়া হয়েছে সেগুলো হলো- ইনটেক লিমিটেড, কর্ণফুলী ইনস্যুরেন্স, এশিয়া ইনস্যুরেন্স, বাংলাদেশ জেনারেল ইনস্যুরেন্স, প্রগ্রেসিভ লাইফ ইনস্যুরেন্স, প্রভাতী ইনস্যুরেন্স, ইউনাইটেড এয়ার, কন্টিনেন্টাল ইনস্যুরেন্স, দুলামিয়া কটন, ইস্টার্ন ইনস্যুরেন্স, এক্সিম ব্যাংক, ইমাম বাটন, কে অ্যান্ড কিউ, মেঘনা লাইফ ইনস্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল ইনস্যুরেন্স, প্রাইম ইসলামী লাইফ ইনস্যুরেন্স, ফু–ওয়াং সিরামিক, পূরবী জেনারেল ইনস্যুরেন্স, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইনস্যুরেন্স, প্যারামাউন্ট ইনস্যুরেন্স, স্ট্যান্ডার্ড ইনস্যুরেন্স এবং ওয়াটা কেমিক্যালস।

sheikh mujib 2020