advertisement
আপনি দেখছেন

করোনায় শিক্ষা কার্যক্রম সম্পূর্ণ স্থবির। ক্লাস তো বটেই, নানা মাধ্যমে পরীক্ষারও জট পড়ে গেছে। কিছু পরীক্ষা আরো দুই-তিন মাস আগে হওয়ার কথা থাকলেও আদৌ কবে সেগুলো নেওয়া সম্ভব হবে তা জানেন না কর্তৃপক্ষ। যদি ঈদুল আযহার পরপরই শিক্ষার্থীদেরকে পরীক্ষার টেবিলে না বসানো যায় তাহলে বড় ধরণের জট পাকিয়ে যাকে শিক্ষা কার্যক্রমে। তাই পরীক্ষা ছাড়াই পাশের ঘোষণা দিয়ে শিক্ষার্থীদের পরবর্তী ক্লাসে বা পর্যায়ে তুলে দেওয়া যায় কিনা সেটাও ভাবছেন সংশ্লিষ্টরা।

education ministry 2019

দেশে করোনাভাইরাসের যে পরিস্থিতি তাতে সহসাই সংক্রমণের শেষ দেখতে পাচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা। ওদিকে সরকার আগেই ঘোষণা দিয়েছে, সবক্ষেত্রে ‘কমপ্রোমাইজ’ করা হলেও শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে কোনো রিস্ক নেওয়া হবে না। শিক্ষামন্ত্রী কয়েক দফায় বলেছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার অন্তত ২০ দিন পর শিক্ষার্থীরা ক্লাসে কিংবা পরীক্ষায় ফিরবে। এই যদি হয় সিদ্ধান্ত তাহলে কিছু পর্যায়ে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

ইতোমধ্যে একটা উদাহরণ তৈরি করেছে নটরডেম কলেজ। একাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা ছাড়াই শিক্ষার্থীদের দ্বাদশ শ্রেণীর তুলে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। দেশসেরা কলেজের এমন সিদ্ধান্তে প্রভাবিত হয়ে আরো কিছু বেসরকারি প্রতিষ্ঠান পরীক্ষা না নিয়েই পরবর্তী ক্লাসে তুলে দেওয়ার কথা ভাবছে জোরেশোরে। সরকারি প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কিছু পর্যায়ে হলেও এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় কিনা- এ নিয়ে কথা বলেছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লা।

bd update 8may

তিনি বলেন, আমাদের ভাবনায় অনেকগুলো বিকল্প আছে। যদি কোনোটাই কাজে না লাগে তাহলে এভাবে তো ভাবতে হবেই। এটাও আসলে একটা বিকল্প। পরীক্ষার চাইতে শিক্ষার্থীর পড়ালেখাকেই আমরা গুরুত্ব দিতে চাই। তাই কোনো কোনো ক্ষেত্রে দ্রুততার সঙ্গে পড়ালেখা চালু করতে গিয়ে যদি পরীক্ষাকে এড়িয়ে যেতে হয় তাহলে আমরা তাই করবো।

sheikh mujib 2020