advertisement
আপনি দেখছেন

সম্প্রতি রাজধানীর সদরঘাট শ্যামবাজার সংলগ্ন বুড়িগঙ্গা নদীতে ‘মর্নিং বার্ড’ লঞ্চ দুর্ঘটনায় ৩৬ জনের প্রাণহানি ঘটে। এরপরই ঘটনাটির তদন্তে একটি কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটির দেয়া প্রতিবেদন নিয়ে আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলন হয়েছে।

burigonga lonch

তবে সংবাদ সম্মেলনে লঞ্চ দুর্ঘটনার জন্য কারা দায়ী বা কী কারণে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে তা বলেননি নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। শুধু জানিয়েছেন, লঞ্চ দুর্ঘটনায় ৩৬ জনের মৃত্যুর বিষয়টি হত্যাকাণ্ড হিসেবে প্রমাণিত হলে অবহেলাজনিত মামলাটি ‘হত্যা মামলা’ হিসেবে বিবেচিত হবে।

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, গত ২৯ জুন সকালে রাজধানীর সদরঘাট শ্যামবাজার সংলগ্ন বুড়িগঙ্গা নদীতে ‘মর্নিং বার্ড’ লঞ্চ দুর্ঘটনায় ৩৬ জনের মৃত্যুর বিষয়টি হত্যাকাণ্ড হিসেবে প্রমাণিত হলে এ সংক্রান্ত অবহেলাজনিত মামলাটি ‘হত্যা মামলা’ (ফৌজদারি কার্যবিধির ৩০২ ধারা) হিসেবে বিবেচিত হবে।

khalid mahmud state ministerনৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

তিনি বলেন, তদন্ত প্রতিবেদনে ২০টি সুপারিশ করা হয়েছে। এগুলো বর্তমানে যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে। এর মধ্যে যে সুপারিশগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন সম্ভব সেগুলো দ্রুততম সময়ের ভেতর করা হবে। আর যেগুলো সময়সাপেক্ষ সেগুলো ধীরে ধীরে বাস্তবায়ন করা হবে। প্রয়োজনে সরকারের উচ্চ মহলের পরামর্শও নেয়া হবে।

এর আগে গতকাল সোমবার রাতে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব রফিকুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়।

প্রসঙ্গত, গত ২৯ জুন বুড়িগঙ্গা নদীর একই স্থানে ময়ূর-২ নামে একটি লঞ্চের ধাক্কায় মর্নিং বার্ড নামের যাত্রীবাহী আরেকটি লঞ্চ ডুবে যায়। সেই ঘটনায় ৩৬ জন মারা যায়।

sheikh mujib 2020