advertisement
আপনি দেখছেন

মরণব্যাধি কোভিড মোকাবেলায় অন্যান্য সব দেশ যখন নমুনা পরীক্ষা বাড়ায় তখন বাংলাদেশে দিন দিন কমছে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা। এতে করে প্রশ্ন উঠছে, সরকারিভাবে প্রতিদিন সংক্রমণের যে ঘোষণা দেওয়া হচ্ছে, সেটাই কি প্রকৃত সংখ্যা? কারণ সারা বিশ্বের সব বিশেষজ্ঞরাই প্রকৃত চিত্র জানতে অধিক হারে নমুনা পরীক্ষার পরামর্শ দিয়ে আসছেন। নমুনা পরীক্ষার নিম্নগামী হার নিয়ে অব্যাহত সমালোচনার মুখে অবশেষে মুখ খুলেছেন অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

nasima sultana newস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত এই মহাপরিচালক (প্রশাসন) বলেন, নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা তুলনামূলক কমছে। এর নানা কারণ হতে পারে। নমুনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয় থেকে একটা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে, এটা একটা কারণ। আরেকটি বিষয় হলো- সার্বিকভাবেই করোনা নিয়ে মানুষের মধ্যে বিদ্যমান দুশ্চিন্তা-উৎকণ্ঠা অনেকখানি কমে গেছে। তাই সামান্য অসুস্থ হলে এখন আর অনেকেই পরীক্ষা করতে আসেন না।

অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা আরো বলেন, সারা দেশে আমাদের বুথগুলোতে নমুনা দেওয়ার সময় সকাল ১১টা থেতে বিকেল ৩টা পর্যন্ত। আগে দেখা যেত, ৩টা পরেও অনেকে লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। কিন্তু এখন চিত্র পাল্টেছে, দুপুর ১টার পরেই বুথে আর কেউ থাকে না। মানুষের মধ্যে নমুনা দেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ কমেছে। সেই কারণে নমুনা সংগ্রহ এবং পরীক্ষা দুটোই কমেছে।

bd update 8may

এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৯ লাখ ৫২ হাজার ৯৪৭টি। তাতে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হিসেবে পাওয়া গেছে ১ লাখ ৮৬ হাজার ৮৯৪ জনকে। প্রাণহানি ঘটেছে ২ হাজার ৩৯১ জনের। গত (রোববার) ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩৯ জনের। এছাড়া এই সময়ের মধ্যে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯৯ জন।

sheikh mujib 2020