advertisement
আপনি দেখছেন

বাংলাদেশ প্রতিশ্রুতি দিলে তা রক্ষা করে। আর সে কারণেই ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলেও ইলিশ রপ্তানি ঠিকই অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ। এরই অংশ হিসেবে বুধবারও ভারতে গেছে ৯৩ দশমিক ৬ মেট্রিক টন ইলিশের চালান। অথচ গত সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ যেদিন প্রথম ভারতে ইলিশ পাঠায়, সেদিনই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা দেয় দেশটি।

hilsha fishভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলেও যাচ্ছে ইলিশ

জানা যায়, এ বছর দুর্গা পূজা উপলক্ষে ১ হাজার ৪৭৫ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতকে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় বাংলাদেশ। সেই হিসাবে গত তিন দিনে ইতোমধ্যে ১৯৭ দশমিক ৯ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে রপ্তানি হয়েছে।

কাস্টমস ও বন্দর সূত্র জানিয়েছে, কাস্টমস ও বন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বুধবার ৯৩ দশমিক ৬ মেট্রিক টন ইলিশের চালান ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে প্রবেশ করে। এর আগের দিন মঙ্গলবার ৬৩ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে যায়। আর তার আগের দিন সোমবার, যেদিন ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে, ৪১ দশমিক ৩ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানি করা হয়।

hilsha fish exporting indiaভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলেও যাচ্ছে ইলিশ

প্রসঙ্গত, ১ কেজি থেকে ১২০০ গ্রাম ওজনের প্রতি কেজি ইলিশের রপ্তানি মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ মার্কিন ডলার বা ৮০০ টাকা। এই দর ধরে উল্লিখিত ১ হাজার ৪৭৫ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতকে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বাংলাদেশ।

মৎস্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ও বেনাপোলের ফিশারিজ কোয়ারেন্টাইন অফিসার মাহবুবুর রহমান জানান, প্রতিশ্রুত ইলিশ ভারতে পাঠানোর ক্ষেত্রে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবার ৯ জন রপ্তানিকারককে অনুমতি দিয়েছে। উল্লিখিত দর অনুযায়ী মোট ১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলারের ইলিশ রপ্তানি হবে ভারতে।

উল্লেখ্য, উৎপাদন কমে যাওয়ায় ২০১২ সাল থেকে সরকার ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। এর পর গত বছর দুর্গা পূজা উপলক্ষে ভারতে ৫০০ টন ইলিশ পাঠায় সরকার। আর এ বছর যাচ্ছে ১ হাজার ৪৭৫ মেট্রিক টন ইলিশ। অবশ্য সরকারের পক্ষ থেকে উল্লিখিত সময়ে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ করা হলেও চোরাই পথে নিয়মিত ভিত্তিতে ভারতে ইলিশ পাচারের অভিযোগ ছিল।

sheikh mujib 2020