advertisement
আপনি দেখছেন

সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে নববিবাহিত স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি ছাত্রলীগ নেতা সাইফুর রহমান এবং মামলার ৪ নম্বর আসামি অর্জুন লস্করকে রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

saifur arjun mc collegeসাইফুর রহমান এবং অর্জুন লস্কর

আজ সোমবার তাদের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

এর আগে সোমবার সকালে পুলিশ তাদের আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করেন।

এর আগে গতকাল রোববার আসামি সাইফুর রহমানকে সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। ধর্ষণের মামলা ছাড়াও তার বিরুদ্ধে একটি অস্ত্র মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। সে দাড়ি কেটে মাস্ক পরে ভারতে পালানোর চেষ্টা করছিল।

mc college accusedঅভিযুক্তদের কয়েকজন

এ ছাড়া একই দিন হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মনতলা ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী গ্রাম দুর্লভপুর থেকে অর্জুন লস্করকে গ্রেপ্তার করা হয়। সে এ মামলার ৪ নম্বর আসামি।

এদিকে, গতকাল রোববার দিবাগত রাত ১টা দিকে মামলার অজ্ঞাত আসামি ছাত্রলীগ কর্মী রাজ চৌধুরী রাজনকে গ্রেপ্তার করেছে র্যা ব। সিলেটের ফেঞ্জুগঞ্জ উপজেলার কচুয়া নয়াটিলা নামক এলাকা থেকে রাজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাকে সহযোগিতা করায় আইনুল নামের আরেক যুবককেও গ্রেপ্তার করা হয়।

এদিকে, গত শুক্রবারের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এ নিয়ে পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার হলো। র্যা ব ও পুলিশের পৃথক অভিযানে তারা গ্রেপ্তার হয়। গ্রেপ্তার অন্যরা হলো- মাহবুবুর রহমান রনি ও রবিউল ইসলাম।

এ ছাড়া মামলার আরো আসামি তারেকুল ইসলাম তারেক এবং মাহফুজুর রহমান মাসুম পলাতক রয়েছে।

উল্লেখ্য, নববিবাহিতা স্ত্রীকে নিয়ে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় সিলেটের ঐতিহ্যবাহী এমসি কলেজে বেড়াতে যান দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ি এলাকার এক বাসিন্দা। কলেজ ক্যাম্পাসে যাওয়ার পর তাদের জোর করে কলেজের ছাত্রাবাসে নিয়ে যায়। এ সময় স্বামীকে আটকে স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। শাহপরাণ থানার পুলিশ খবর পেয়ে রাত ১১টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

পরে ভুক্তভোগী নারীর স্বামী ছাত্রলীগের ৬ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো ৩ জনকে আসামি করে রাতেই মামলাটি করেন সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরাণ থানায়। আসামিরা যাতে দেশত্যাগ করতে না পারে, সেজন্য সীমান্তেও কড়া পাহারা জারি করা হয়।

sheikh mujib 2020