advertisement
আপনি দেখছেন

করোনার কারণে বন্ধ থাকা দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আগামী মাসে (ফেব্রুয়ারি) খুলছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাস নেয়া হবে শিক্ষার্থীদের আংশিক উপস্থিতিতে। এক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে এসএসসি ও এইচএসসির শিক্ষার্থীদের। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে অন্যান্য শ্রেণিরও ক্লাস শুরু হবে।

classroom emptyকরোনাকালে বন্ধ শ্রেণিকক্ষ

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) সূত্র জানায়, ক্লাসের ক্ষেত্রে এবারের এসএসসি এবং এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীরা অগ্রাধিকার পাবে। তাদের সিলেবাস শেষ করতে ক্লাস নেয়া হবে। পরে অন্যান্য শ্রেণির ক্লাস শুরু হবে ধাপে ধাপে।

এসএসসি ও এইচএসসির বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগের মধ্যে একটি বিভাগের শিক্ষার্থীদের ক্লাস হবে প্রতিদিন। এমন নির্দেশনা দিয়ে ক্লাস রুটিন তৈরি করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বলেছে মাউশি।

দেশের করোনা মহামারি শুরু হলে গত বছরের ১৭ মার্চ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে ছুটি বাড়ানো হয়। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ থাকছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তবে দেশের কওমি শিক্ষা ব্যবস্থা এর আওতাভুক্ত হবে না।

department of secondary and higher educationমাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)

একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, নতুন করে আর ছুটি বাড়ানো হবে না। শেষ ধাপের ছুটির মেয়াদ শেষ হলে ফেব্রুয়ারির শুরু থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে, ক্লাসও চলবে।

এর আগে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, ফেব্রুয়ারি থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। এ ক্ষেত্রে প্রস্তুতি নেয়ার কথা বলা হলে সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও সংস্থাগুলো কাজ শুরু করে।

এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মতি পাওয়ার পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করার কথা বলা হয়। পরিস্থিতি অনুকূলে থাকলে এসএসসি ও এইচএসসির ক্লাস শুরুর মধ্য দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মাউশির মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান কার্যক্রম শুরুর নির্দেশনা দেয়া হবে। এ বিষয়ে দ্রুততার সঙ্গে নির্দেশনা জারি করা হবে।

sheikh mujib 2020