advertisement
আপনি দেখছেন

সরকার ভারত থেকে ৩ কোটি ডোজ ‘কোভিশিল্ড’ আনছে। তবে আর কোনো দেশ থেকে করোনাভাইরাসের টিকা আনা হবে না, এমনটা কখনোই বলা হয়নি। অন্য আরো অনেক দেশ কিংবা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে টিকা আনার ব্যাপারে আলোচনা চলছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবার আনা হচ্ছে রাশিয়ার উদ্ভাবিত ‘স্পুটনিক-৫’ নামের টিকা। ইতোমধ্যে এ ব্যাপারে ‘নন অবজেকশন সার্টিফিকেট’ বা এনওসি পাওয়া গেছে। তবে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, এ টিকা শুধুমাত্র রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রে কর্মরত রাশিয়া, বেলারুশ ও ইউক্রেনের নাগরিকদের জন্য ব্যবহার করা হবে।

sputnik vaccine

গতকাল বৃহস্পতিবার তথ্যটি নিশ্চিত করে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, এই টিকা বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য নয়। এটি আনা হচ্ছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রে কর্মরত রাশিয়া, বেলারুশ ও ইউক্রেনের নাগরিকদের জন্য। প্রাথমিকভাবে ১ হাজার ডোজ ‘স্পুটনিক-৫’ নিয়ে আসা হচ্ছে।

মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান আরো বলেন, এই টিকা উৎপাদন করছে রাশিয়া। চুক্তি অনুযায়ী, ভ্যাকসিনটি প্রয়োগের পর যদি কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়, তাহলে সেই দায়ভার বাংলাদেশ সরকার বহন করবে না বরং এর ভালোমন্দের সম্পূর্ণ দায় বহন করবে রূপপুর নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্টে কর্মরত রাশিয়ান স্টেট অ্যাটোমিক এনার্জি করপোরেশন।