advertisement
আপনি দেখছেন

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) ইমেইল এবং ওয়েবসাইট হ্যাক হয়েছে। এরপর সেটির মাধ্যমে মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কাছে ২০২২ সালের পাঠ্যবইয়ের চাহিদা চাওয়া হয়। আজ মঙ্গলবার নিজেদের ওয়েবসাইটে তথ্যটি জানিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর।

nctbজাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)

জানা গেছে, গত ৩ ফেব্রুয়ারি এনসিটিবির ইমেইলের মাধ্যমে জেলা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের কাছে ২০২২ সালের পাঠ্যবইয়ের চাহিদা চাওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে চিঠিটি এনসিটিবির ওয়েবসাইটেও আপ করে দেয় হ্যাকাররা। পরবর্তীতে চিঠিটিকে নকল বলে পত্র জারি করে এনসিটিবি। সচিব অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল করিম স্বাক্ষরিত গত ১১ ফেব্রুয়ারি জারি করা পত্রটি আজ অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে এনসিটিবির চেয়ারম্যান অধ্যাপক নারায়ণ চন্দ্র সাহা বলেন, ওয়েবসাইট ও ইমেইল হ্যাক করে তথ্য জানতে চাওয়া হয়। জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইতোমধ্যে ঘটনাটি সাইবার ক্রাইম ইউনিটকে জানানো হয়েছে।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি জারি করা পত্রে বলা হয়, ২০২২ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যবইয়ের চাহিদা অনলাইনে www.texbook.gov.bd/brs ঠিকানায় দাখিলের জন্য এনসিটিবির স্মারক নম্বর ব্যবহার করে গত ৩ ফেব্রুয়ারি This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it. ইমেইল থেকে সব জেলা, উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে পাঠানো হয় এবং একই সঙ্গে ওই চিঠি এনসিটিবির ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়।

অনাকাঙিক্ষতভাবে একই তারিখ ও স্মারক ব্যবহার করে কোনো ব্যক্তি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ কাজ করেছে। ওই মেইলে ‘২০২২ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যপুস্তকের চাহিদা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিজস্ব প্যাডে ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে স্ক্যান করে/পিডিএফ ফরমেটে This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it. ঠিকানায় পাঠানোর জন্য অনুরোধ করা হলো’ বলে উল্লেখ আছে। যা এনসিটিবি থেকে পাঠানো নয় বলে প্রমাণিত হয়।

সেখানে আরো বলা হয়েছে, ২০২২ শিক্ষাবর্ষের পাঠ্যপুস্তকের চাহিদা ইমেইলে এনসিটিবিতে পাঠানোর প্রয়োজন নেই। জেলা, উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে দাখিল করলেই হবে। এ বিষয়ে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হলো।

sheikh mujib 2020