advertisement
আপনি দেখছেন

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দেশে চলমান টিকাদান কর্মসূচির শুরু থেকেই অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা প্রয়োগ করা হচ্ছে। কিন্তু চুক্তি অনুযায়ী ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট এই টিকা না পাঠানোর কারণে মাঝপথে সঙ্কট দেখা দেয়। ইতোমধ্যে প্রথম ডোজের টিকাদান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ওদিকে সরকার চেষ্টা করছে অন্য কোম্পানির টিকা নিয়ে আসার জন্য।

corona vaccine 1

কিন্তু এতে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, যে ব্যক্তি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন, তিনি কি দ্বিতীয় ডোজের সময় অন্য কোম্পাটির টিকা গ্রহণ করতে পারবেন? এই প্রশ্নে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরাও একমত হতে পারেননি। তবে ‘দুই ডোজের ক্ষেত্রে একই কোম্পানির টিকা নেওয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করা উচিত’- এ ব্যাপারে একমত তারা।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর উপদেষ্টা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, দুই ডোজে একই কোম্পানির টিকা নিতে হবে। কারণ দুই ডোজে দুই টিকা নিলে ফলাফল কী হতে পারে, তা এখনো পরীক্ষা (ট্রায়াল) করে দেখা হয়নি। তাছাড়া টিকাভেদে তাদের ফর্মূলাতেও পার্থক্য আছে।

iedcr bd

জনস্বাস্থ্যবিদ অধ্যাপক ডা. লিয়াকত আলী বলেন- একেবারেই নেওয়া যাবে না, আমি তেমনটা মনে করি না। তবে সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে একই কোম্পানির টিকা নেওয়ার। শেষ পর্যন্ত সরকার যদি অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা না আনতে পারে তাহলে তো অন্য কোম্পানির টিকা নিতেই কবে। তবে এমন সমস্যায় পড়লে উচিত হবে ৩ মাসের গ্যাপের জায়গায় ৪ মাস গ্যাপ দিয়ে টিকা নেওয়া।

গত ২৭ জানুয়ারি দেশে প্রথম টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। ওই দিন রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে একজন নার্সকে দেওয়ার মাধ্যমে পরীক্ষামূলক এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সারাদেশে গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হয় গত ৭ ফেব্রুয়ারি।