advertisement
আপনি দেখছেন

মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার সীমান্তঘেষা তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামে ১৩ জনকে করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, তারা সবাই ভাইরাসটির ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বহন করে চলেছেন। আক্রান্তদেরকে দ্রুত পৃথক করা হয়েছে এবং তাদের পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের করোনা টেস্ট করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

bd update 8may

বিষয়গুলো নিশ্চিত করেছেন মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডা. নাসির উদ্দিন। তিনি বলেন, তেঁতুলবাড়িয়াসহ জেলার সীমান্তঘেষা প্রায় সবগুলো গ্রামের মানুষ বিশেষ করে কৃষকরা অহরহ ভারতীয় নাগরিকদের সঙ্গে মিশছেন। সীমান্তের নো ম্যানস ল্যান্ডে কাজ করা ভারতীয় কৃষকদের সঙ্গে অনেক সময় একসাথে খাচ্ছেনও বাংলাদেশি কৃষকরা।

সীমান্তবর্তী মৈত্রাপুর গ্রামে কৃষক মোকাদ্দেস আলী বলেন, ভারতীয় কৃষকদের মাত্র কয়েক মিটারের ব্যবধানে বসে আমরা একসঙ্গে কাজ করি। কখনো কখনো একসঙ্গে বসে কথা হয়। এতে করোনা ছড়িয়ে পড়তে পারে, তা নিয়ে আমরা সতর্ক ছিলাম না। তবে ১৩ জনকে পজিটিভ শনান্ত করার পর সবার টনক নড়েছে।

এদিকে, সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে সংক্রমণ বাড়তে থাকায় বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। লকডাউন জারি করা হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। খুব জরুরি রোগী ছাড়া সাধারণ রোগীদের হাসপাতালে না যাওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকেও একই নির্দেশনা দেয়ার পাশাপাশি করোনা রোগীর জন্য শয্য সংখ্যা বাড়াতে বলা হয়েছে।