advertisement
আপনি দেখছেন

স্বাধীনতার ৫০ বছর পর সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের এই সময়ে আজ মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে পাশ হয়েছে হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা বিল। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল প্রস্তাব করলে বিলটি কণ্ঠভোটে তা পাশ হয়।

hajj visitহজ ও জাতীয় সংসদ, ফাইল ছবি

এখন থেকে হজ ও ওমরাহ এজেন্সিকে শর্ত সাপেক্ষে নিবন্ধন নিতে হবে উল্লেখ করে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী জানান, কোনো এজেন্সি সৌদি আরবে গিয়ে অপরাধ বা অনিয়ম করলে দেশেই তার বিচারের বিধান রাখা হয়েছে।

কোনো হজ এজেন্সি অনিয়ম করলে নিবন্ধন বাতিল ছাড়াও ৫০ লাখ টাকা সর্বোচ্চ জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। একই অপরাধ ওমরাহ এজেন্সি করলে নিবন্ধন হারানোর পাশাপাশি গুণতে হবে সর্বোচ্চ ১৫ লাখ টাকা জরিমানা।

hajj visitহজ যাত্রী, ফাইল ছবি

এ ছাড়া অনিয়ম বা অপরাধ করলে সংশ্লিষ্ট এজেন্সির জামানত বাজেয়াপ্ত, নিবন্ধন স্থগিত, সতর্কীকরণ ও তিরস্কারের শাস্তি রয়েছে পাশ হওয়া বিলটিতে। এটি বাস্তবায়নে একটি জাতীয় কমিটি গঠন করা হবে বলে জানান ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান দুলাল।

কোনো এজেন্সি টানা দুইবার তিরস্কারের শাস্তি পেলে তার নিবন্ধন দুই বছর স্থগিত থাকবে। নিবন্ধন বাতিল হওয়া এজেন্সির অংশীদার অথবা স্বত্বাধিকারী পরবর্তীতে হজ বা ওমরার এজেন্সির নিবন্ধন পাবে না, সম্পৃক্ত হতে পারবে না অন্য কোনো এজেন্সির কাজেও।

hajj flightsসংসদ অধিবেশন, ফাইল ছবি

বিলটির ওপর জনমত যাচাই করতে কমিটিতে পাঠানো এবং সংশোধনী প্রস্তাবগুলোর নিষ্পত্তি করেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। এতে বলা হয়েছে, নিবন্ধন পেতে হজ এজেন্সির ৩ বছর এবং ওমরাহ এজেন্সির ২ বছরের এজেন্সি পরিচালনার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

এর আগে বিদ্যমান হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা নীতিমালা আইনে প্রণীত করতে গত ৪ এপ্রিল বিলটি সংসদে তোলেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী। পরে সেটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রতিবেদন নিতে পাঠানো হয় ধর্ম মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে।